10722-lost-love-poemsপাশের ঘরে জরিফুল থাকে। অনেক রাত জেগে কাজ করে, ফেসবুকে আড্ডা দেয়, রাতে শোয়ার সময় সে কয়েকবার লক্ষ্য করেছে একই গান বাজছে, হতে পারে জয়ও অনেক রাত জাগে, বই পড়ে, লেখালেখি করে। এইতো প্রায় দু’মাস আগের কথা। জয় প্রথম জয়েন করলো।
কয়েকদিন পর একদিন জরিফুল জয়ের রুমে ঢুকে একটা বই হাতে নিলো, পাতা উল্টিয়ে লেখক পরিচিতি পড়ে কিছুটা আবেগ আল্পুত হয়ে পড়লো, আপনি বই লিখেন স্যার? আমি জানতাম আমাদের ডিপার্টমেন্টের একজন স্যার বই লিখেন, আপনি সেই স্যার! আমি খুব খুশি হয়েছি স্যার, আমি একজন স্যার পেলাম যিনি একজন লেখকও, বলে জরিফুল বইটা নিয়ে বললো, আমি এটা নিই স্যার, পড়ে আবার দিয়ে দিবো।
পরের দিন এক ভদ্রমহিলা জরিফুলকে ফোন করলো, হ্যালো আসসালামুয়ালায়কুম।
ওয়ালেকুম আসসালাম, কে বলছেন প্লিজ!, অপরিচিত মহিলার কণ্ঠস্বর শুনে জরিফুল কিছুটা দ্বিধাদ্বন্দ্বে পড়লো।
জয় আপনাদের ওখানে জয়েন করেছে না?
স্যারের কথা বলছেন? হ্যাঁ, ও আপনি ম্যাডাম বলছেন? আসসালামুয়ালায়কুম ম্যাডাম, জরিফুল কথাগুলো না বুঝেই বলে ফেললো।
ওয়ালেকুম আসসালাম। আপনি কি রাতে রেস্ট হাউজেই থাকেন?
জি ম্যাডাম।
আপনার স্যারের দিকে একটু খেয়াল রাখবেন।
জি ম্যাডাম, অবশ্যই।
আর একটা কথা, বলে ভদ্রমহিলা যেনো থমকে গেলো।
জি ম্যাডাম বলুন।
আর আমি যে আপনার কাছ থেকে আপনার স্যারের খোঁজখবর নিই এটা যেনো কেউ না জানে, এমনকি আপনার স্যারও না।
কথাটা শুনে জরিফুল কেমন একটা হোঁচট খেলো, জি ম্যাডাম কাউকে বলবো না।

সেদিনের পর থেকে সেই ভদ্রমহিলা প্রতিদিন রাতে জয়ের খোঁজখবর নেয়, আপনার স্যার সকালে কোথায় নাস্তা খায়, দুপুরে কোথায়, রাতে কোথায়? কোথায় কোথায় ঘুরে বেড়ায়?
ক’দিন আগে জিজ্ঞেস করলো, আপনার স্যার আরেকটা মোবাইল ফোন কিনেছে নাকি? রাত জেগে মোবাইল ফোনে কথা বলে নাকি? ফেসবুকে আরো এ্যাকাউন্ট খুলেছে নাকি?
জরিফুল অবশ্য সত্যি কথাই বললো, না, স্যার তো কাজ আর কাজ নিয়ে সবসময় ব্যস্ত থাকে। তবে ফেসবুকে বসে…
বসে মানে?
ঠিক রাত ন’টায়। অল্প কিছুক্ষণ, এই প্রায় আধ ঘণ্টা।
অ।
সেদিনের পর থেকে ভদ্রমহিলা আগের মতোই খোঁজখবর নিতো। গতকাল রাতেও খবর নিয়েছে, এটা যেনো জরিফুলেরও রুটিন ওয়ার্ক হয়ে গেছে। রাতে স্যারের খবর ম্যাডামকে না দেয়া পর্যন্ত জরিফুলের যেনো দিনটা অসম্পুর্ণই থেকে যায়। কিন্তু আজ প্রায় তিন চার দিন হলো সেই ভদ্রমহিলার কোনো খোঁজখবর নেই, স্যারের সঙ্গে ম্যাডামের ঝগড়া-বিবাদ হলো নাকি?

জয়ের রুমে সেই একই গান বেজেই চলেছে, আমারও পরাণও যাহা চায়।
জরিফুল একবার ঘড়ির দিকে তাকালো, সকাল সাড়ে আটটা বাজে এখনো স্যার ঘুম থেকে উঠলেন না। স্যার তো প্রতিদিন সাতটার মধ্যে ঘুম থেকে উঠেন, কিছুক্ষণ লেখালেখি করেন তারপর অফিসে এসে বসেন ঠিক সকাল ন’টায়। অথচ আজ সাড়ে আটটা বাজলো স্যার এখনো ঘুম থেকে উঠলেন না।
জরিফুল একবার জয়ের রুমের দরজার কাছে গিয়ে দাঁড়ালো। রুমে সেই গানটা বেজেই চলেছে, জরিফুল মৃদু কণ্ঠে কয়েকবার ডাক দিলো, স্যার, স্যার
জয়ের কোনো সাড়া নেই।
জরিফুল জয়ের মোবাইল ফোনে রিং করলো কিন’ জয় ফোন রিসিভ করলো না।
জরিফুল পর পর কয়েকবার রিং করলো কিন্তু জয়ের কোনো সাড়া মিললো না।
ততক্ষণে সকাল ন’টা বেজে গেছে। অফিসের সবাই আসতে শুরু করেছে। জরিফুল প্রথমে খবরটা অফিসের বড় বাবুকে বললো। বড়বাবু বসকে জানালো।
বস আগে কয়েকবার ফোন করলেন, নিজে জয়ের নাম ধরে ডাকলেন কিন’ কোনোভাবেই জয়ের সাড়া মিললো না। অবেশেষে তিনি থানায় ফোন করলেন।
কিছুক্ষণের মধ্যে থানা থেকে পুলিশ এলো। পুলিশ অফিসার সবার উদ্দেশ্যে কিছুটা আদেশের সুরে বললেন, আপনারা কেউ অফিস ত্যাগ করবেন না। রুমের ভেতরেও আসবেন না। তারপর দরজা খোলার ব্যবস্থা করলেন।
পুলিশ অফিসার এবার জয়ের পালস পরীক্ষা করতে শুরু করলেন।
জরিফুলের হঠাৎ করে মনে হলো খবরটা একবার ম্যাডামকে দেয়া দরকার। সে তখনই ভদ্রমহিলাকে ফোন করলো।
চলবে…
আমার এই লেখাটি প্রথম থেকে পড়তে ক্লিক করুন:আমারও পরাণও যাহা চায়-০১

GD Star Rating
loading...
GD Star Rating
loading...

জিল্লুর রহমান সম্পর্কে

চোখের সামনে যেকোন অসঙ্গতি মনের মধ্যে দাগ কাটতো, কিশোর মন প্রতিবাদী হয়ে উঠতো। তার বহিঃপ্রকাশ ঘটতো কবিতা লেখার মধ্য দিয়ে। ক্ষুধা ও দারিদ্রের বিরুদ্ধে, নির্যাতন ও বঞ্চনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কবিতা। কবিতার পাশাপাশি সামাজিক অসঙ্গতি নিয়ে শুরু হলো ছোটগল্প, উপন্যাস লেখা। একে একে প্রকাশিত হতে থাকলো কাব্যগ্রন্থ, উপন্যাস। প্রকাশিত হলো অমর একুশে বইমেলা-২০১৬ পর্যন্ত ০১টি কাব্যগ্রন্থ, ১৭ টি উপন্যাস এবং ০১ টি ধারাবাহিক উপন্যাসের ০৩ খণ্ড। গ্রন্থ আকারে প্রকাশের পাশাপাশি লেখা ছড়িয়ে পড়ল অনলাইনেও। লেখার শ্লোগানের মতো প্রতিটি উপন্যাসই যেন সামাজিক অবস্থার প্রতিচ্ছবি। সর্বশেষ প্রতিচ্ছবিটি প্রকাশিত হয় অমর একুশে বইমেলা-২০১৭।
এই পোস্টের বিষয়বস্তু ও বক্তব্য একান্তই পোস্ট লেখকের নিজের,লেখার যে কোন নৈতিক ও আইনগত দায়-দায়িত্ব লেখকের। অনুরূপভাবে যে কোন মন্তব্যের নৈতিক ও আইনগত দায়-দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট মন্তব্যকারীর।
এই লেখাটি পোস্ট করা হয়েছে গল্প-এ। স্থায়ী লিংক বুকমার্ক করুন।

২ টি মন্তব্য আমারও পরাণও যাহা চায়-০৪

  1. মুরুব্বী বলেছেনঃ

    চতুর্থাংশের অংশও পড়লাম প্রিয় জিল্লুর রহমান ভাই।
    স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানবেন। ধন্যবাদ।

    GD Star Rating
    loading...

মন্তব্য প্রধান বন্ধ আছে।