টিপু সুলতান-এর ব্লগ

টিপু সুলতান
১২ অক্টোবর ১৯৮৬
কেশবপুর, যশোর। বাংলাদেশ।

জীবন বৃত্তান্ত; লিকলিকে স্বচ্ছ ক্যানভাস
নদীর শরীরে উপচে পড়া
প্রেমালিকার ঢেউ, স্রোতস্বিনী কল্লোলঃ
প্রথম বার্তা,সবুজ আফ্রোদি উদ্দ্যানে
গানের বাঁশিতে সংগীত শোনায়-
লেবুগাছ ঘ্রাণ-আলাজ শরবত
আমার পূর্ণানন্দ, নক্ষত্র-পৃথিবীপৃষ্ঠ হৃদয়বীণা
রোদে পোড়া সখিনার রক্ত,শাদা দুধের মা;
কালোত্তীর্ণ সন্তান আমি তাঁর
শেষ অনন্দটুকুর ছায়ানট-
মানুষ হয়ে ওঠা প্রবাদ ও সংলাপ।

★ প্রথম কাব্যগ্রন্থঃ গৃহ কারাগার।২০১৭ ইং।
নৃ প্রকাশন,ঢাকা। প্রচ্ছদঃ কাব্য কারিম।
★ যৌথ কাব্যগ্রন্থ থেকে
জাতীয় ম্যাগাজিন,লিটল ম্যাগ, পোর্টাল,
জাতীয় পত্রিকাসহ বিভিন্ন ব্লগে টুকিটাক লেখালেখি।

প্রিয় বাক্যঃ আমি ভালো আছি, তুমি…

♥ প্রয়োজন
খোদা তোমায় নিয়ে গদ্য লিখতেছে
তুমি বিজ্ঞাপন হইয়া উঠতেছ
যেকোনো দুপুরে, যেকোনো সন্ধের দিকে
এমন ভাবে মুখোমুখি হয়ে উঠেছ
তোমায় চিনে ফেলবে লোকমুখ
মসৃণ কুয়াশার হরিণীঝোপে জোনাকি,
গৃহদালানের জানালা রেখার ওপাশে
রাত্রির দুহাত, হালটের জ্যোৎস্নাসম্প্রদায়
কবিতার অভ্যাসেও জড়ায়ে যাচ্ছ
আমি পাঠ করছি নীরবে, প্রয়োজনে-
মর্মরিত কোলাহল ভেসে আসার আগে
অদূরে ন্যাড়া ডালপাতার মতো তাকাই
মধুর তিক্ততা পড়ুন
কবিতা | ৬ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪৪৩ বার দেখা | ৪৯ শব্দ
মানুষের এত তাড়া থাকতে নেই
আমার তো কোনো অবস্থান নেই
তবু সকল কিছু আধুনিক লাগে
পৃষ্ঠা পৃষ্ঠা গৃহহীন পাখিদের মতো;
শাদা কাগজে বসন্ত টাঙিয়ে
ঘন জঙ্গলের দিকে যাচ্ছে
রোদ করতলে ধানি জমির মাঠ,
ইকোনো গোধূলির খোলসে ঢুকে
জমিয়ে উঠেছে আশাদায়ক
ফুল গন্ধ নির্ভরে মিশে
এই শহর; অদূরে সংঘবদ্ধ গ্রাম
এখানে কতখানি মধুর বিষণ্ণ জানো? পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২৮৯ বার দেখা | ৩৯ শব্দ
অনন্য চোখে যত বসন্ত
যে চোখ কাজল পরেনি,
যে চোখ অনন্য
অশ্রুলবণে ভিজিয়াছে-বসন্ত,
সকল প্রয়োজন-গল্পগুলো
তবু সেই সব চোখ
মানুষের চোখ, তাঁরই চোখ
ঘাসের ওপর শৈত্য শিশির
শাদা কুয়াশার ভেতর
উধাও দুপুর ওড়ার মতো; পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৯২ বার দেখা | ২২ শব্দ
সবুজ পাতার কাছে বিজয় দিবস
সবুজ পাতার কাছে বিজয় দিবস
সবুজ পাতার কাছে
বিজয় দিবস ন্যাড়া ডালভাঙা সবুজ পাতার কাছে
আহত গোলাপফুল, বিধ্বস্ত ধূলোর ওপর;
জনকের মতো লুটিয়ে, জননীর মতো শোকগ্রস্ত
আমার মুঠোহাতে তুলে নিলাম
তারপর শুকে শুকে দীর্ঘপ্রেমে কুড়িয়েছি-সব;
হারানোর গল্প, খুঁজে পাবার গল্প, বিজয় দিবস! পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৭২ বার দেখা | ৩১ শব্দ ১টি ছবি
চুমুকে প্রাক্তন সমগ্র
ঠোঁটের উপর চা চুমুকের উষ্ণতা
নতুন এক সুঘ্রাণে প্রাক্তন শব্দ ওড়ে
নৈঃশব্দ্যের কার্তিকে ভাঁটফুল চোখ-
মুখোমুখি, তারপর স্থির হয়ে থাকে
নিমের ডালপালায় অপরাহ্ন রোদ
পরবর্তী আলিঙ্গন জড়াতে জড়াতে
চিবিয়ে নিচ্ছে লুকোচাপা সারারাত,
ছেঁড়াখোঁড়া শীতকাটানো বুকেপিঠে
গোপন কলরব, অপ্রিয় অভিনয়,
জ্যোৎস্নাময় পৃথিবীর বেচাকেনা দোকানে
চুমুকের উষ্ণতা ফুরিয়ে যাচ্ছে
সকল ছাপচিত্র, রূপকথার মতো; এইতো- পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২২০ বার দেখা | ৪২ শব্দ
এতসব আয়োজনে গহীন টান
যাহার কোমর ধরে শুয়ে আছো
কোজাগরী জ্যোৎস্না-প্রাক্তন প্রেমিকার
লাল ব্লাউজ ভিজে লুটিয়ে পড়েছ
তীক্ষ্ণআলো, চিকনধারা-জোনাকি শোরগোল;
এত সব আয়োজন পৃথিবীর গায়ে কম্পমান
আবছায়া বারান্দায় দাঁড়াইয়া গিলে খায়
আমার মাশকলই চোখ
ঘাস ও ধূলোপথে রুয়ে যাওয়া গহীন টান! পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১২৫ বার দেখা | ৩০ শব্দ
দীর্ঘ বসন্ত
কোনো কিছু লেখব না, নৈঃশব্দ্যের চিঠি
আজও এহাত ওহাত ধাক্কা খেতে খেতে
শুকনো পাতার মতো পড়ে আছে, কেবল
বেহাত ঠিকানার টেবিলে দূরের বিকেল
হারিয়ে গেছে, গহবরে, পদাবলির দীর্ঘ বসন্ত
ছোট্ট শহর, একটি জানালা-অনিন্দ্য আলো;
শিমুলের আলবাণী রক্ত রং বেদনা ফলায়- পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২০২ বার দেখা | ৩৪ শব্দ
প্রতিদিনের বোঝাপড়া সব
ধূলোর কঙ্কাল পড়ে থাকা পথ
আমাকে চিনিয়াছিল পাখিটির বাড়ি,
ঘাসভেজা শীতল ভ্রমণী হাওয়া
দালানগুলোর ছাদ, নক্ষত্র রাত-
প্রতিদিনের আলগোছ প্রেম
যতবার যেতে চায় অদূর মুখোমুখি
থাক থাক থেমে যায় সব বোঝাপড়া-
সে মোতায়েন রাখিয়াছে পুলিশফাঁড়ি! পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৭৬ বার দেখা | ২৯ শব্দ
আমার আঙুল আছে পড়ে
কেন গাল বাঁকা করে বসে আছো
মাটির বৃক্ষ হতে অদূর অপরাজেয়
সৌখিন শহরে ধূলোর বাসস্ট্যান্ড;
বেলাশেষে পৃথিবীর বদল ফিরে যায়
শব্দের কবি নিয়ে যায় কবিতার ঝুলি
এই প্রগাঢ় আদিত্য ঘাস ডিঙায়ে
তরুণ মাঠের পুরনো গান সাঁতরায়ে
ভায়োলিন সুর, শেফালি আকাশ-
ভুবনচিল; সিম্ফনি কোনো গোপন
শ্রবণ দাগ কাটে চুমু রং, বাহাদুরি ছায়া;
চক পেন্সিল পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৭৬ বার দেখা | ৬০ শব্দ
আপত্তি নেই বসন্ত এসেছে
সূচ হাতে গেঁথেছ আমার ঠোঁট
এই যাপনে রাত পোহাও নাগরিকা
তবু খণ্ডিত মোনাজাতের ভেতরে
আছো নৈঃশব্দ্যের দ্রাক্ষা প্রার্থনায়
আমার কথাগুলো হৈম নদীর মাঠ
বসন্ত পেরিয়ে এসেছে
বুনো হাওয়ার উৎসব, নরম ডানা;
ক্ষমার চোখে, মায়ার চোখে
এফোঁড় ওফোঁড় রক্তের ঘ্রাণে
ভেসে যায় ভাঙা কাচের জানালা
আনকোরা প্রেম, মৃদু হাসির মুখোমুখি
রাজহংস জলের মতো একজোড়া প্রাণ! পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৬৬ বার দেখা | ৪৩ শব্দ
আসন্ন আরেক সব
বৃক্ষ আমাকে অরণ্য দিয়েছে।
কেন দিয়েছে এত সব, মোটেও
কখনো মিলিয়ে দেখিনি,
পাতাভেঙে বাঁকাচুরা ছায়া সে
পাখির মতো যতদূর উড়ে যাচ্ছে
আসন্ন আরেক ভোর, ডানা মেলছে;
সামান্য ছিল-রোদ, কাদায় নেমে
এসেছে বৃষ্টি, ইতোমধ্যে বিনিয়োগ হবে
এইতো ছোট্ট শিশুর মতো, শীতের সন্ধ্যা! পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৯৬ বার দেখা | ৩৩ শব্দ
যাহারে খুঁজিতেছি
এইতো, কারা রেখে গেছে নারকেল গাছির ওপরে
সমুদ্রিত আকাশ, উন্নত মুষল বনের
সাতটি ঋতুস্রাব দুগ্ধ দিগন্তরেখা;
হাড়ে হাড়ে জুড়ে যায় কুয়াশার ভেতরে
করোটিকা রোদ, চারদিকে কাঠচেরা আয়নার মুখ,
কনকনি পাতার টনটনে স্বর্গগমনে
শীতল হাওয়ার বুকে নাছোড় সওয়ার-
আমি কী আরও পাব ছায়াসূত্র, যাহারে খুঁজিতেছি! পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৩৮৩ বার দেখা | ৩৮ শব্দ
কারণ
কোনো এক কারণে
তোমার গালের নিচে থাপ্পড় মারতে ইচ্ছে করে
অথচ সেখানে একটা পছন্দের তিল রেখেছ
হাত চলে না আমার-চোখ যায়
ব্যথার বেদনায় বিষে বিষে চুমু খায় অনুভবের ঠোঁট। পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৭২ বার দেখা | ২৬ শব্দ
নারী
বুকের ভেতর উঁচুঢিবি-তোমার আমার কবর
এই দেখো হৃদপিণ্ড-দ্রাক্ষাপ্রেমে সরোবর-
দুনিয়া তো আঁতুড়ঘর-কাঁটা বিছানো শিকারি
আড়াইতলা বুক আমার-এসো প্রিয়-ময়িসী নারী। পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৭২ বার দেখা | ১৯ শব্দ
শুক্রবার
তুমি শুক্রবার বুকে ধরে ঘুমায়ে আছো
অথচ এত কথা ছিল, ধূসর সন্ধ্যায়-
একজোড়া ঠোঁটের কাছে নোঙর ফেলে
অন্যকারো ঠিকরে পড়া আঙুলের ছায়া,
পরিস্কার চেনা যায়, বাইরে হৈম মিছিল
বিন্দু বিন্দু নক্ষত্র গান, নাগরিক নবান্ন;
কেবল প্ল্যাকার্ড পৃষ্ঠা ভরে দাঁড়িয়ে আছে
ধানতারা মাঠ হতে শহর, পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১০৫ বার দেখা | ৪৬ শব্দ