শান্ত চৌধুরী-এর ব্লগ

নিঃসঙ্গতা যখন ঠুকরে খায় দুমড়ে মুচড়ে কাবু করে দেহের বাহীর ভিতর প্রবল সংজ্ঞাহীন অবগাহন।

১ সেপ্টেম্বর, ১৭ ভাদ্র বাংলা ( জন্ম তারিখ )।

সময়ের যত লেনদেন
মেঘদল জমে থাকা আকাশ
শুভ্র কুয়াশা ভেজা শিশির।
সবুজ ঘাসের এক চিলতে
অভিমানি বুক চাঁদের নিয়ন আলো খোঁজে। জোনাকীরা ছুটে চলে অজানা
গন্তব্যে রঙ, রঙিনের ঘোর কেটে
উৎসবে ডুবে শহর।
সাইবেরিয়া থেকে আগত
একদল পরিযায়ী উড়ে যায়
মুখোরিত শব্দের উল্লাসে। সময়ের যত লেনদেন, যত
হিসেব-নিকেশ
দ্রুত বদলে যায় সুর্যাস্তের মতো
অন্ধকারে। পড়ুন
কবিতা | , | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৯৩ বার দেখা | ৩৮ শব্দ
নক্ষত্র ও আমি
আমি নক্ষত্রের মতো চেয়ে থাকি
দূরের মায়াবী ক্যানভাসে
নীল আকাশ, নীল জল ছুঁয়ে
যখন অন্ধকার নামে। নীলাকাশ সিমাহীন
নীলজল অন্তহীন সমুদ্রে
সু উচ্চ পাহাড়ের বৌন উৎসব
নদীজল প্রমত্তা ছুটে যায়। জলতরঙ্গ, নীলাকাশ সঙ্গম
অনিকেত সবুজ ছুঁয়ে
মহাকালের উৎসব। জন্ম-জন্মান্তরের সূর্যাস্তে
নতুনের আগমনী বার্তা
দূরের পথে সংলাপ আর
মুখোরিত জীবনের গান। পড়ুন
কবিতা | , | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৬৬ বার দেখা | ৩৬ শব্দ
এই শহরে
ইট কংক্রিটের এই শহরে
মধ্য ঝাঁঝাল রোদেলা দুপুর।
ব্যস্ত নগরীর কোলাহলে মিশে
পায়ে হেঁটে হেঁটে ক্লান্ত পথিক। পিছু ফিরে বার বার ক্লান্তিতে
নির্জন নিস্তব্ধ আশ্রয়ের খোঁজে।
অনবরত কলরবে গাড়ির হর্ণ
যান্ত্রিক নগরীর বিবর্ণতা। পাখিদের সুরের মিষ্টতা নেই
গাঢ় সবুজ যেন দু’চোখে ধাঁ-ধা।
দেয়াল ঘেরা কংক্রিটের প্রাচীর
মানুষ গুলোও কেহ কার না। অথই মধ্য যুগে ডুবে আছে
মানবতা পড়ুন
কবিতা | | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৯৮ বার দেখা | ৬০ শব্দ
আমার একটা শহর ছিলো
একটা শহর ছিলো,
গুমোট অন্ধকারে ডুবে থাকতো।
হুতুম প্যাঁচার মতো
রাত্রি’র নিরবচ্ছিন্ন ছায়া হয়ে। শিমুলের সবুজ পাতার ফাঁকে
জোনাকির আনাগোনা,
সুরের পাখি কুকিলের বসন্ত গান।
দূরের ল্যাম্প পোস্টের মিটিমিটি আলোর রশ্মি,
উজানে মাঝির দাঁড়টান
ডুবে যেতো হাজার বছরের ক্ষত। শহরে উৎসবে দু’একটা মোমবাতি ক্ষণস্থায়ী (অবসরে) নিজের মতো করে ডুবে যেতো নির্জন বিলাসিতায়। রাত জাগা পড়ুন
কবিতা | | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১১৩ বার দেখা | ৯৫ শব্দ
যখন সন্ধ্যা নামে
যখন সন্ধ্যা নামে
আবিরের রঙে হারায় ধূসর বিকেল।
অনবরত পাখিদের কলরব
নীড়ে ফিরে যাওয়ার স্লোগান। শেষ বিকেলের সূর্যটা
লাল আগুনের লেলিহান দিয়ে
শাসাতে চায় ধরাকে। মেঘনার স্রোতশীল নদীর
জলে, বালিহাঁস খেলে যায়।
দু’একটা কাঠবিড়ালির ছুটাছুটি
এগাছের ডাল ছেড়ে ওগাছে।
মাঝিমাল্লারা আপন নিবাসে
ফিরে যাওয়ায় মত্ত।
কিছু জেলে ছোট ডিঙ্গি নাওয়ে
ভেসে ইলিশের জাল
ফেলে অপেক্ষার প্রহরে। গায়ের বঁধু ব্যস্ত পড়ুন
কবিতা | | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৯৬ বার দেখা | ৬৬ শব্দ
চিঠি বিরহ (২)
প্রিয়তা
কেমন আছো ? আজো কি সেই আগের মতো লালগোলাপ খোপায় গাঁথ। তোমার রেশমী কোমল চুল গুলো ছেড়ে পায়চারী করো। সকালের সোনা রোদে ছুটে যাও বকুল তলায়। আমাকে তোমার মনে পড়ে কি প্রিয়তা? তোমার দেয়া সেই রুমালটায় আজো তোমার গায়ের গন্ধ শুকে যাই। মনে হয় তুমি পড়ুন
অন্যান্য | , | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৯৬ বার দেখা | ১৯১ শব্দ
চিঠি বিরহ (চিঠি)
প্রিয় মৌমিতা,
কদিন হলো তোমার সাথে যোগাযোগ নেই। কেমন আছো তুমি? স্বামী সুখের সংসার আর নতুন পরিবেশ, সব মিলিয়ে ভালোই আছো? তোমার বাড়ির উঠোনের বকুল গাছটি আজো আছে? নাকি আমার মত অবহেলা অনাদরে মিলিয়ে গেছে? বকুলের ঘ্রাণ আজো আমায় আন্দোলিত করে, তোমায় খুঁজে যাই বকুলের পড়ুন
অন্যান্য | , | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২০৫ বার দেখা | ১৮৪ শব্দ
কাছাকাছি (গান)
যদি এই পথচলা থেমে যায়
তবে যেনো আমি আছি
তোমারই কাছাকাছি।
অজানা কোন ফুলের
পাপড়ীতে মিশে
তোমারই পাশাপশি। হয়তো তুমি ব্যস্ত তখন
তোমারই খেয়ালে।
রঙীন স্বপ্ন গুলো এঁকে যাও
মনেরই দেয়ালে।
আমি তোমার স্পর্শে
তোমার ছাঁয়ায়।
তুমি ডুবে যাও আপরূপ
তোমার কায়ায়। আনমনে কোন এক বিকেলে
উদ্দেশ্যহীন অভিযান।
তোমার স্পর্শে ভুলে যাবো
সব অভিমান।
হয়তো তুমি ব্যস্ত তখন
তোমারই খেয়ালে।
রঙীন স্বপ্ন গুলো পড়ুন
অন্যান্য | , | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৯০ বার দেখা | ৪৭ শব্দ
বৃষ্টির শহর (গান)
বৃষ্টি নামুক শহর জুড়ে
বৃষ্টি নামুক তোমায় ছুঁয়ে
বৃষ্টি নামুক অঝর ধারায়
তোমার পায়ে নূপুর হয়ে। টুপুর টাপুর বৃষ্টি ঝরুক
তোমার শরীর ছুঁয়ে যাক
রেশমী কালো তোমার চুলে
বৃষ্টির জলে ভিজে যাক। বৃষ্টি ধারায় ভিজিয়ে যাক
নাগরিক কোলাহল
পিচঢালা পথে নেমে আসুক
নিরবতা আর নিস্তব্ধতা। বৃষ্টি নামুক শহর জুড়ে
বৃষ্টি নামুক তোমায় ছুঁয়ে
শীতল বৃষ্টি জলের ছোঁয়ায়
তোমার দেহ পড়ুন
কবিতা | | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২৩২ বার দেখা | ৪৬ শব্দ
মনের স্টেশন (গান)
মনের নেই কোন স্টেশন
ছুটে চলে যখন তখন
ফেরারী মন ফেরারী সময়
ধূসর সময়ে হারিয়ে যায়। নিস্তব্ধ নিরানন্দ নীলাকাশ
কিছু প্রজাপতি উড়ে উড়ে যায়
মুগ্ধতা ছড়িয়ে বাগান বিলাস
মনের নাটাই ঘুড়ি উড়ায়। মানেনা মন বাধা-ব্যবধান
ছুটে চলে নিরবধি আপন স্টেশন
ফেরারী সময় ফেরারী মন
দূরে বহু দূরে ছেড়ে কোলাহল। পড়ুন
কবিতা | | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২১০ বার দেখা | ৩৮ শব্দ
সময়ের যত লেনদেন
সময়ের যত লেনদেন
মেঘদল জমে থাকা আকাশ
শুভ্র কুয়াশা ভেজা শিশির।
সবুজ ঘাসের এক চিলতে
অভিমানি বুক চাঁদের নিয়ন আলো খোঁজে। জোনাকীরা ছুটে চলে অজানা
গন্তব্যে রঙ, রঙিনের ঘোর কেটে
উৎসবে ডুবে শহর।
সাইবেরিয়া থেকে আগত
একদল পরিযায়ী উড়ে যায়
মুখোরিত শব্দের উল্লাসে। সময়ের যত লেনদেন, যত
হিসেব-নিকেশ
দ্রুত বদলে যায় সুর্যাস্তের মতো
অন্ধকারে। পড়ুন
কবিতা | | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৩৪০ বার দেখা | ৪২ শব্দ ১টি ছবি
তোমাকে দেখার সাধ অপূর্ণ
যত তোমাকে দেখি তোমাকে দেখার সাধ আমার অপূর্ণ,
আমি তোমাকে দেখেছি সেদিন তোমার উঠানে,
এলো চুলে, তোমার মায়াবী চোখের হরিণি মায়া।
তুমি অবরুদ্ধ, তোমার ছল দৃষ্টিসীমায়,
তোমার বোবা চাহনি!
আমি কত বার তোমাকে ডেকেছি !! যত তোমাকে দেখি তোমাকে দেখার সাধ আমার অপূর্ণ,
তুমি বিকেলে সন্ধ্যা তারা ফুলের মতো সুবাসিত আলোড়ন,
তুমি পড়ুন
কবিতা | , | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১২১৫ বার দেখা | ৬৭ শব্দ
ভালোবেসে দেখো একবার
আমাকে ভালোবেসে দেখো -একবার
সমুদ্র জলের মতো – তোমাকে
ভালোবাসবো সীমাহীন। আমাকে ভালোবেসে দেখো -একবার
পাহাড় যেমন আকাশ ছুঁয়ে যায়
তেমন করে বুকে আগলে রাখবো। আমাকে ভালোবেসে দেখো -একবার
আকাশের মতো বিশলতায় – তোমাকে
ঢেকে দিবো অজস্র কোলাহলে। আমাকে ভালোবেসে দেখো -একবার
চাদনী রাতের মতো – আলোকিত
করে দিবো তোমাকে। আমাকে ভালোবেসে দেখো -একবার
রঙিন স্বপ্নের মতো পড়ুন
কবিতা | | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১২২৯ বার দেখা | ৮১ শব্দ
তোমাকে দেখার সাধ অপূর্ণ
যত তোমাকে দেখি তোমাকে দেখার সাধ আমার অপূর্ণ,আমি তোমাকে দেখেছি সেদিন তোমার উঠানে, এলো চুলে, তোমার মায়াবী চোখের হরিণি মায়া। তুমি অবরুদ্ধ, তোমার ছল দৃষ্টিসীমায়, তোমার বোবা চাহনি! আমি কত বার তোমাকে ডেকেছি !! যত তোমাকে দেখি তোমাকে দেখার সাধ আমার অপূর্ণ, তুমি বিকেলে পড়ুন
কবিতা | | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৪৩৮ বার দেখা | ৭৫ শব্দ
তোমাকে ভালোবাসি
তোমাকে ভালোবাসি
তুমি উষ্ণতায় চুম্মন দাও, ভিজিয়ে দাও উর্বর শরীর। বৃষ্টির মতো ভালোবাসি তোমায়, তোমার শৈপ্লীক অনুভবে শীতল দেহ, তোমাকে ভালোবাসি এক দুপুর বৃষ্টি জলের মতো।
তোমাকে ভালোবাসি সারা রাতের বৃষ্টি বিলাসে।
তোমাকে ভালোবাসি
বৃষ্টি ভেজা জোছনা আর জোনাকি মতো।
তোমাকে ভালোবাসি, অজর আষাঢ়ে বৃষ্টির মতো বিজলী ভেজা পড়ুন
কবিতা | | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৩২৭ বার দেখা | ৪৫ শব্দ