রত্না রশীদ ব্যানার্জী-এর ব্লগ
ভালবাসা
ভালবাসা
ভালবাসা। খুব ঝামেলার জিনিস, সে তুমি যাকেই ভালোবাসো না কেন। যে পেয়ে যায় ( বলে মনে করে) তার কাছে ভালবাসা ঘর কা মুরগী, ইচ্ছে হলেই জবাই যোগ্য। এভরিথিং টেকেন ফর গ্রান্টেড। মানুষ নিজের প্রয়োজনে নিজে ভালবাসে। প্রায়শঃই একতরফা। প্রাথমিকভাবে মনে হতে পড়ুন
জীবন | ১টি মন্তব্য | ৬৩ বার দেখা | ২৪৪ শব্দ ১টি ছবি
আহাম্মক
আহাম্মক
সিজন ফুরোলে পাখির শিস-ডাক থেমে তো যাবেই।
তাবলে আমি কেন ভেবে নিতে যাবো,
সেই ডাকই এখনো কোনো পাঁজরা গুঁড়োয় না!!! পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | ৬৭ বার দেখা | ২০ শব্দ ১টি ছবি
পরকীয়া
পরকীয়া
সারাজীবন কে থাকে কার সাথে? কার বয়ে গেছে!
তবু যাপনের যাচিত অভ্যাস।
ছেঁড়াখোঁড়া ছবি ছোঁড়ে ভিন্ন ক্যানভাস। পড়ুন
কবিতা, জীবন | ২ টি মন্তব্য | ৫৬ বার দেখা | ১৮ শব্দ ১টি ছবি
মিথ্যে সুখ
মিথ্যে সুখ
টা-টা করতে গেলে জাস্ট একটু জানিয়ে গেলে হয়।
কতোখানি সর্বনাশে কার যে কোথায় কতো ক্ষয়
মেপে দেখার দাঁড়িপাল্লা কুনকে নেই বলে,
আমাপা ধ্বসের মুখে কাউকে কি ধাক্কা দেওয়া চলে! এগিয়ে পিছিয়ে খেলা ছিলই তো প্রেমে দস্তুর,
কখনো কি জানা গেছে কার সোনা কখন পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৯৩ বার দেখা | ৯১ শব্দ ১টি ছবি
নোনাঘাম-স্বাদুভাত
সভ্যতার শির ঘ্রাণঃ দল-শ্যাওলা জলের পাতাল- অথচ মনুর পুত্র নেয়ে ওঠে দশ- পাঁচটার রাঙা ফার্মেসে,
মানবীও ভাত রাঁধে লোনা ঘামে সিক্ত করে তার,
ব্যঞ্জনে ব্যাঞ্জনা মেশে মানবিকতার,
রক্তে ঘামে ভাতটি মেখে অমৃত আস্বাদ, দু’হাতে পশুকে ঠেলে সভ্যতাকে করেছে আড়াল। পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৬৭ বার দেখা | ৩৭ শব্দ
উপসর্গ
সব্বাই চলে গেছে?
গান নিয়ে প্রাণ নিয়ে ফিরে?
উল্টো সুরে পোঁ ধরেছে
সানাই বিরহ- মন্দিরে?
কেড়েছে কঙ্কণ -কেউড় কেড়েছে নুপুর- নিক্কণী?
তবু তুমি ভালো থাকবে ভালো ভালো ভাববে তুমি রিনি। পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২৮২ বার দেখা | ২৯ শব্দ
অপাচ্য
থুতু গেলা হর হামেশা-
ঘেন্না ধরে যায় এই
লোক-দেখানি রঙিন চেহারা – থুতু ফেলে দিতে গেলে নিচের মাটিতে
সমস্ত সংসার হাসে মুখের ওপরে,
মাগনায় জ্ঞান মেলে যত্রতত্র বিগশপার ভরে – – একহাতে কি করতালি বাজে?
এক মুখে শুনে কিন্তু কোরোনা বিচার।
খোঁজ নাও, হয়তো মনোবিকারই বা হবে! – নিচে নইলে, থুতু পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৭৮ বার দেখা | ৫৮ শব্দ
প্রতাপ
মুক্তি ছিল চাঁদমারি,
তেজ ছিল আঙুলের টিপে যখন যেমন পেতো
পেতলের আঙরাখায়
সাবেক কালের চুলো
অথবা প্রদীপে
সলতে পেতে পুইয়েছে তাপ বন্ধতায় মুক্তি পেতে আপন প্রতাপে। পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৬৯ বার দেখা | ২০ শব্দ
ফুলফুল খেলা
কোনো তর্কে আমার আর মন নেই।
নিজের রক্তের লালে ফুলকারির
আত্মঘাতী শখও এই সেদিন জুড়ালো। কতোখানি শৌখিন আর সুন্দরের চ্যালা বুঝে দ্যাখো!
একহাতে তালি দিতে মহাযুদ্ধী সেমিনার
ফুলের আড়াল দিয়ে নির্লজ্জ টেবিল সাজায়। বুক তো পোড়ে প্রদীপেরই, একা-
তাই, ফুল নয় পাখি নয়,
বয়ে যাওয়া অগ্নিস্রোতে
আতান্তরে ভবিষ্য সাজাই। পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৭৮ বার দেখা | ৪৩ শব্দ
অন্যথা
আকাশ বলে তো সত্যি কিছু নেই,
তবু তাকে অনন্তের শিরোপা চড়াবে যদি তুমি,
একবুক ফাঁকা ফুঁয়ে
চুমকি মাখা নক্ষত্রের বাজার বসাতে যদি চাও,
যদি শুন্যতা ছাড়াতে চেয়ে
মহাশূন্যে সিঁদকাঠি নাড়াবার ঝুঁকি নাও,
তবে তোমার হাতেগড়া বিপন্নতা ঘিরে
বিকল আমার আর কি’বা করার বাকি থাকে- ভাঙচুর পৃথিবীর সর্বদা- সর্বথা পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৮০ বার দেখা | ৫১ শব্দ