কাঁদাকর দিন
চিবুক তোল
নিভিয়ে দেবো চাঁদের অহংকার
আঁখি খোল
থামিয়ে দেবো নীল নদের জোয়ার
ভাঙ্গুক আকাশ তুমুল গর্জনে ,
তুমি তোমার চুল ছাড়ো
দীর্ঘশ্বাস নামুক মেঘের বনে
উড়াল দেবো যুগল পাহাড়ে
উসুলে ঝড়ো আবেগে
রোদ্দুর মাখুক লাল গোলাপের বাগান
যতো পারে
লজ্জায় মরুক- জোড়া শামুক
অমৃত হোক আমাদের কাঁদাকর দিন
তারপর পড়ুন
কবিতা | | ১টি মন্তব্য | ২২ বার দেখা | ৪৮ শব্দ ১টি ছবি
Facebook Profile photo
স্বাধীনতার ছায়া
স্বাধীনতার ছায়া গাছ দাঁড়িয়ে
আমি দাঁড়িয়ে
সূর্য হেলন চেয়ারে
ছায়ায় ছায়ায় কথা বলে
ছায়ায় দাঁড়িয়ে। তাঁর ছায়া কথা বলে
কান্না হাসির পরে
আমার ছায়া আমার ঘরে
থাকে দূরে সরে। আমি গুনি দিনপুঞ্জি
সে গুনে বসন্ত
চলন্ত এ মূর্তিগুলো
মৃত্যুকে করে জীবন্ত। অতঃপর,
ছায়ায় ছায়ায় সন্ধি করে
চন্দ্র-সূর্য কেঁদে মরে
হাসি-ঠাট্টার অবুঝ কলঙ্ক
জন্মভূমির গা-গতরে। স্বাধীনতা পরাধীনতার কথা বলে
নামানুষের ভালোবাসা ছলে বল-এ। পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | ১১ বার দেখা | ৪২ শব্দ
ডিসেম্বর ১৯৭১
ডিসেম্বর ১৯৭১ অনেকটা রোদকে চিনে নিয়েছি তখন। সেই ভোরবেলা
সেই তুমুল সর্ষে ক্ষেতে হলুদের ঢেউ দেখতে দেখতে খুব
সাবধানে এগিয়েছি বাঁকে। সুরমা আর বাসিয়া নদী দুটির
মিলন মোহনায়, একটি সূর্যকে স্বাগত জানাবো বলে। একটি শিখার কাছে বন্ধক রেখেছি আমার সব প্রেম, আর
প্রতিমার প্রথম চুম্বন। এই মাটিঘেরা উষ্ণ বাদাড়। কিছুটা
অবহেলায়, পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | ১৭ বার দেখা | ৮৬ শব্দ
অজ্ঞাত
অজ্ঞাত না চিনতেম সুদূরের নীল আকাশ
না চিনতেম প্রাণ প্রভা এই বাতাস;
না চিনতেম সে ঐ রক্ত চোখ সূর্য
না চিনতেম চাঁদ কত শীতল শুভ্র। চিনতেম কি এ সবুজ বনানী মাঠ
চিনতেম কি গগনে তারার ঐ হাট;
জানতেম কি পাখিরা জানে সুরতান
জানতেম কি ধরায় এতো কলতান ? নদী ঝর্ণা বহে দিবা নিশি পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ১৭ বার দেখা | ১০২ শব্দ
প্রবাসী কথন -৮
প্রবাসী কথন -৮ ঝরছে তুষার খোলা আকাশ থেকে
আকাশ বুঝি দিলো খুলে আগল
এই আকাশে বরফ ঝরেই শুধু
ওই আকাশে ঝরতো চোখের জল
আহা! এমন চোখের জলে
হয় না এখন স্নান
হয় না এখন পাখি মনের
মান বা অভিমান
সবকিছুই খোয়া গেছে
হারিয়ে গেছে সব
বরফ ডাঙ্গায় আছড়ে মরে
পাখির কলরব
উড়তো পাখি বৃষ্টি পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | ১৪ বার দেখা | ৭১ শব্দ
স্বপ্নহীনের সাপলুডো (একাঙ্ক নাটক)- ৯ম পর্ব
স্বপ্নহীনের সাপলুডো(একাঙ্ক নাটক)- ৯ম পর্ব জগাই – না দাদা! সেটি হচ্ছে না। যারাই বলে এক্ষুনি ঘুরে আসছি, তারাই আর আসে না। এ আমার দেখে ঠকে অনেক শিক্ষা হয়েছে। দিব্যি ডিম নিল। হাতে নেওয়ার পরে বলে, এই যাহ্‌! জগাই খুচরো আনতে ভুলে গেছি। এখুনি এসে দিয়ে পড়ুন
শিল্পসংস্কৃতি | ২ টি মন্তব্য | ১৭ বার দেখা | ৪০৫ শব্দ
নিশিকাব্য
অথচ সল্প আয়ু, এতো গল্প
কেন বুনতে চাও শব্দনীড়,
ক্লান্ত লোচন খুঁজে ফেরে ঘুম
স্বপ্ন দেখে নতুন পৃথিবীর;
নতুন মানেই জামা বদল
কিছু লতার অবাধ বিস্তার
মুরুব্বী, নামটাও পেকে যাচ্ছে
ঝরে পড়ছে পাতার সংসার! এবার শব্দতরী ভেসে গেলে
শামুক খুলেছে অবাধ্য মুখ
বাতাসে ঢেউয়ের মাতলামি
ভালো লাগছে নদীর অসুখ!
তবু ভালো থাকা অদ্ভুত জ্বালা
ঔষুধ পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ৩১ বার দেখা | ৫৩ শব্দ
চলো লজ্জাবতী হও
চলো লজ্জাবতী হও

তোমায় যখন বলি শুভসকাল
ঝলমলে হয়ে যায় দিন আমার
তুমিময় সারাবেলা!
তুমি কবিতার সেই স্তবকের মত
ছন্দবিহীন হয়ে ও ছান্দসিক
হেলাফেলায় মায়ার খেলা। তোমায় না ভাবলে
নি:শ্বাসগুলো নেতিয়ে পড়া পুঁই লতা
লজ্জাবতীদের নেতিয়ে পড়তে দেখেছ কখনো?
আপাদমস্তক লজ্জার ঘোমটায় ঢাকা
এক নির্লজ্জ ঢঙয়ের লাজুক প্রতিচ্ছবি যেন!
তোমায় পড়ুন
কবিতা | | ৫ টি মন্তব্য | ৩৬ বার দেখা | ১০৪ শব্দ ১টি ছবি
জেদ চাপে
জেদ চেপে বসলে
অনলে, উত্তাপে কাঁপে দেহ
মূর্ত চোখে- কটমট রাগ
ঝড়ো তাণ্ডব বয়ে যায় বুকে!
ব্যাস
শুধু শেষ দেখতে চাই- অশেষ বাক্যের, অশ্লেষার, অশ্লীলতার, অসভ্যতার
তরবারিতে শাণ দিই
বালিতে,
অশ্রুর রেখায় রোদ্দুর ঝিলিক,
ব্যাঙ্গ ভঙ্গিমা
রোজ রোজ ভেল্কি ছাপে খবরের কাগজে, বড় বড় কলামে;
নিখোঁজ ব্যক্তির পাশে পড়ুন
কবিতা | | ২ টি মন্তব্য | ২১ বার দেখা | ১১৫ শব্দ ১টি ছবি
সার্কেল
সার্কেল
সার্কেল বিবর্ণ দিনের শেষে পথ গুলো আর খুঁজে পাইনা,
অনন্তকাল ধরে পথ হাঁটবো বলে যে পথে নেমেছিলাম,
সেই পথে চলতে গিয়ে দেখি পথের সরল রেখা বিলুপ্ত হয়ে শূন্যপথ। পথ হারাবো জন্য আজ পথের খোঁজ মেলে না।
বসে থাকাই অবধারিত, পড়ুন
জীবন | ২ টি মন্তব্য | ২১ বার দেখা | ২৭৩ শব্দ ১টি ছবি
একান্নবর্তী পরিবার থেকে বৃদ্ধাশ্রম, এরপর কি?
একান্নবর্তী পরিবার থেকে বৃদ্ধাশ্রম, এরপর কি? ঋগ্ববেদের বিভিন্ন ঋগ পর্যালোচনা করলে একান্নবর্তী পরিবার ব্যবস্থা কত প্রাচীন তা বোঝা যায়। মানুষ পরিবার প্রথায় এসেছিল সভ্য হবার জন্য। সভ্যতা বিকাশে পরিবারের ভূমিকা যে অনস্বীকার্য তা এই প্রবাদ থেকে বোঝা যায়- ‘ব্যবহারে বংশের পরিচয়’ বা ‘পরিবার হচ্ছে শিশুর পড়ুন
জীবন | ২ টি মন্তব্য | ১৮ বার দেখা | ৩১০ শব্দ
ছুঁয়ে দেখো শূন্য
ছুঁয়ে দেখো শূন্য ফিসফিস করে কথা বলছিলাম
ওর সাথে একা একা; ও একটা বনপরী
যদিও কেউ দেখেনি ওকে
ওর জীবনে প্রেম, গান, শিশুমুখ
কতটুকু মানে রাখে জানতে চাইলে
ও বলেছিল, ‘তোমার মতন
আমিও একটা বার্বি
আমিও একটা মিথ
তুমি প্রকৃতির উপহার
আমি তোমার তৈরী’
ওর বাকচাতুর্য আমাকে বিভ্রান্ত করল
আমি শব্দের পর শব্দ পেরিয়ে
পৌঁছে গেলাম বিপন্ন পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | ১৯ বার দেখা | ৮৮ শব্দ
পার্থক্যের কতকিছু
পার্থক্যের কতকিছু [] জগতে কতকিছুই প্রথম প্রকাশিত হয়, কতকিছু-
সান্নিধ্যের সাগর ছুঁতে না পেরে, মিশে যায় ঢেউয়ের
সাথে। কত শামুক-ঝিনুক, আত্মস্মৃতি খুঁজে
বদলায় নিবাস। নিমিষে ভালোবাসার ছায়াতলে
ডুব দেয় মানুষের প্রিয় পরাণ পাখিরা।
কত পার্থক্যের বেলা, নিয়ন্ত্রণ করে ঝড়ের ভাগ্য
এখন শ্রাবণ নয়, তবু তাণ্ডবের লালরেখা
দাগ রেখে যায় সময়ের বুকের উপর, পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | ১৩ বার দেখা | ৭৭ শব্দ
দুঃখ
দুঃখ যেদিকে দুঃখ যায়
সেদিকে হাট বসে – দেবদারুর মাথায়
দ থেকে দুঃখের উৎপত্তি
মোমের আগায় জ্বলে থাকা টিমটিম আলো
নদী – দুঃখের আর এক নাম
সুখ – তারও ডাক নাম নদী। যেদিকে দুঃখ যায়
সুখ তার পিছু পিছু হাটে। পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | ১৮ বার দেখা | ৩২ শব্দ
প্রতিদ্বন্দ্বী
প্রতিদ্বন্দ্বী তুমি আমার প্রতিদ্বন্দ্বী তুমি আমার প্রতিদ্বন্দ্বী
প্রতিযোগীও ছিলে বটে; কি সে তা বুঝতে সময় গেল টেনে?
অবশেষ তা অভিমানে মিটে গেল। অভিমানেই যদি চুপসে যাবে
বিড়ালের গলায় ঘন্টা বাজে লাজে; শুধু শুধু বাহানা এমনি
এমন দ্বন্দ্ব দাঁড় করালে প্রতিযোগীর বেশে। তুমি না কি ছিলে প্রেমের প্রতিযোগী?
প্রেম দ্বন্দ্বে ভালোবাসার প্রতিদ্বন্দ্বী বনে গেলে; পড়ুন
কবিতা | | ২ টি মন্তব্য | ৩১ বার দেখা | ১৫০ শব্দ