মা দিবস … যে ভালোবাসায় বাঁধি খেলাঘর …

কোন শব্দে এতো আকুলতা !! এতো আবেগ !! এক নিবিড় টান, শেকড়ের টান। পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ শব্দ ‘মা’। মায়ের সঙ্গে সন্তানের গভীরতম সম্পর্কের কাছে সব সম্পর্কই যেন গৌণ। যে সম্পর্কের সঙ্গে আর কোনো তুলনা হয় না। মায়ের তুলনা মা নিজেই। একটি আশ্রয়ের নাম ‘মা’। একটি শব্দই মনে করিয়ে দেয় অকৃত্রিম স্নেহ, মমতা আর গভীর ভালোবাসার কথা। মা শাশ্বত, চিরন্তন। শুধু বিশেষ দিন নয়; মায়ের প্রতি সন্তানের ভালোবাসাময় হোক প্রতিটি দিন। প্রতিটি সময়।

মানুষ হলে তার জন্য প্রতি মিলি সেকেন্ড, সেকেন্ড, মিনিট, ঘন্টা বা প্রতিদিনই মা দিবস। আর মানুষ রুপে জন্ম নেওয়া অমানুষদের জন্য কখনোই না। একদিনের জন্য মাকে সম্মান, ভালবাসা দেখানো বা উপহার দেওয়া, তা হবে বিলাসিতা বা রসিকতা। পশ্চিমারা বৃদ্ধাশ্রমে বাবা-মাকে বছরে একদিন দেখতে যায় কিছু উপহার হাতে নিয়ে। টাকা আমাদের কম থাকতে পারে, হতে পারি উন্নয়নশীল রাষ্ট্র কিন্তু বাবা মায়ের প্রতি বাংলাদেশের মানুষের মুষ্টিমেয় ছাড়া ভালোবাসা তাদের চেয়ে কোটি লক্ষ গুণ বেশী। সেদিক থেকে আমরা তাদের চেয়ে অনেক বেশী বিত্তবান। এ আমাদের গর্ব। আমাদের রয়েছে ইতিহাস এবং সংস্কৃতির এক গৌরবময় অধ্যায়। আমরা হৃদয় ছুঁয়ে বলতে পারি, আমরা মা ভালোবাসি।

হাজারও না বলা কষ্ট স্বীকার করে মা গর্ভে ধারণ করে সন্তানকে পৃথিবীতে নিয়ে আসে। এ ঋণ কোনোভাবেই শোধ করার নয়। শুধু তাই নয়, সন্তান জন্মের পর নিজের চেয়ে সন্তানই তখন হয়ে ওঠে মুখ্য। এভাবে সারাজীবন মা সন্তানকে আগলে রাখার চেষ্টা করেন। পৃথকভাবে ‘মা দিবস’ পালনের কথা না থাকলেও ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের জন্য প্রতিনিয়তই মা’কে সম্মান জানানো বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। বলা হয়েছে, ‘মার পায়ের নিচে সন্তানের বেহেশত।’

বুখারী শরীফে উল্লেখ করা হয়, ‘আবু হুরাইরা রা. বলেন: এক ব্যক্তি রাসূলুল্লাহ সা: দরবারে হাজির হয়ে জিজ্ঞেস করলেন: ইয়া রাসুলুল্লাহ! আমার সুন্দর আচরণের সবচাইতে বেশি দাবিদার কে? তিনি বললেন, তোমার মা। সে পুনরায় জিজ্ঞেস করল, এরপর কে? তিনি বললেন, তোমার মা। সে পুনরায় জিজ্ঞেস করল, তারপর কে? তিনি বললেন, তোমার মা। সে আবারও জিজ্ঞেস করল এরপর কে? তিনি বললেন, তোমার বাবা।‘ (সহিহ আল বুখারী, এইচ এম সাঈদ কম্পানি, আদব মঞ্জিল, করাচি, কিতাবুল আদব, ২খ, পৃষ্ঠা ৮৮২)

মা দিবসের ইতিহাস: বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, মা দিবস উদযাপন প্রথম শুরু হয় গ্রিসে। গ্রীকরা তাদের মাতা-দেবীর পূজা করত। যার নাম হল ‘রিয়া’। এটা তারা বসন্তকালীন উৎসবের একটি অংশ হিসাবে উদযাপন করত। মা দিবসের ইতিহাসের সঙ্গে প্রাচীন গ্রীস ও রোমের ইতিহাস জড়িয়ে আছে। প্রাচীন গ্রীসে দেব-জননী রিয়ার উদ্দেশে বসন্ত উৎসব উৎসর্গ করা হতো। রোমে দেবী মা সিবিলির জন্য ছিল বিশেষ উৎসব। ভেনাসকে রোমানরা তাদের জাতির মা বলে মনে করতো। রোমান পুরাণে সিরিস, সিবিলি ও ভেনাস এ তিন দেবীকে এক নামে আলমা মেটার নামে অভিহিত করা হতো। আলমা মেটারের অর্থ হলো জীবনদায়িনী, খাদ্যদায়িনী এবং আশীর্বাদিকা। রোমানদের মা উৎসব পরবর্তীতে খ্রিস্টীয় ধর্মের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে মা মেরির সম্মানে ইংল্যান্ড ও স্কটল্যান্ডে চতুর্থ রবিবার মাদারিং সানডে হিসেবে পালিত হয়। প্রাচীন রোমেও এ রকম দিবস উদযাপন করা হতো ‘সাইবল’ দেবীর প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর উদ্দেশ্যে। তাদের ধর্মীয় বিশ্বাস মতে ‘সাইবল’ হল সকল দেব-দেবীর মাতা। খৃষ্টপূর্ব প্রায় ৫০ সালে রোমে ধর্মীয় উৎসব হিসাবে একটি দিবস পালন করা হতো, যার নাম ছিল ‘হিলারিয়া’। অর্থাৎ দেবী মাতা ‘রিয়ার’ সম্মানে। এটা উদযাপনের সময় ছিল ১৫ই মার্চ থেকে ১৮ই মার্চ। গ্রীক ও রোমান পৌত্তলিক সমাজে দেব-দেবীর মায়ের প্রতি ধর্মীয়ভাবে শ্রদ্ধা জানাতে এ সব দিবস পালন করা হতো, এটাই পরবর্তীকালে মা দিবস হিসাবে চালু করা হয়েছে বিভিন্ন দেশে। সন্তানের প্রতি মায়ের অনুচ্চারিত শব্দ প্রতিপাদ্য যেন সব দেবতার আদরের ধন নিত্যকালের তুই পুরাতন, তুই প্রভাতের আলোর সমবয়সী। তুই জগতের স্বপ্ন হতে এসেছিস আনন্দ স্রোতে, নূতন হয়ে আমার বুকে বিলাসি।

আমেরিকার ‘অ্যানম জারাফস’ নামের এক নারী চিন্তাবিদের কল্যাণে মা দিবস চালু হয়। তিনি নিজের মাকে অত্যন্ত ভালোবাসতেন, মায়ের ভালোবাসা অক্ষুণ্ন রাখতে জীবনে বিবাহ পর্যন্ত করেননি। তিনি পড়াশোনা করেছেন পশ্চিম ভার্জিনিয়ায় চার্চ নিয়ন্ত্রিত একটি স্কুলে। তার মায়ের মৃত্যুর দু’বছর বছর পর তিনি সরকারের কাছে দাবি করলেন মায়ের স্মরণে একদিন সরকারি ছুটি দিতে হবে। তার অনুভূতি হল, মায়েরা সন্তানদের জন্য সারাজীবন যা করেন, তা সন্তানরা অনুভব করে না। তাই যদি এ উপলক্ষে একটি ছুটি দেয়া হয়, একটি দিবস পালন করা হয়, তাহলে সন্তানদের মায়ের ভূমিকা সম্পর্কে কিছুটা ধারণা দেওয়া সম্ভব।

অ্যানম জারাফসের আন্দোলনে আমেরিকান কংগ্রেসের অনেক রাজনীতিক একাত্মতা ঘোষণা করলেন। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯০৮ সালের ১০ মে প্রাথমিকভাবে আমেরিকার পশ্চিম ভার্জিনিয়া, ফ্লোরিডা, ওকলাহোমা ও পেনসিলভ্যানিয়াতে মা দিবস পালন শুরু হয়। ১৯১০ সালে সব অঙ্গরাজ্যে সরকারিভাবে মা দিবস ও তাতে ছুটি পালন শুরু হয়। আমেরিকান কংগ্রেস ১৯১৩ সালের ১০ মে মা দিবসকে সরকারিভাবে পালনের অনুমোদন দেয়। তারা মে মাসের প্রথম রোববারকে মা দিবস পালনের দিন হিসেবে নির্ধারণ করে। আমেরিকার অনুকরণে মেক্সিকো, কানাডা, লাতিন আমেরিকা, চীন, জাপান ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে শুরু হয় মা দিবস পালন। যদিও আমেরিকায় এটা পালিত হয় মে মাসের দ্বিতীয় রোববার, কিন্তু অন্যান্য দেশে কিছুটা ব্যতিক্রম দেখা যায়। যেমন, নরওয়েতে মা দিবস পালিত হয় মে মাসের দ্বিতীয় রোববার। আর্জেন্টিনায় পালিত হয় অক্টোবর মাসের দ্বিতীয় রোববার। দক্ষিণ আফ্রিকায় পালিত হয় মে মাসের প্রথম রোববার। ফ্রান্সে ও সুইডেনে পালিত হয় মে মাসের শেষ রোববার। জাপান এবং বাংলাদেশে পালিত হয় মে মাসের দ্বিতীয় রোববার। আজ সেই দিন।

আজ যেন সীমানা বিহীন ভালোবাসার একটি দিন।
আজ বিশ্ব মা দিবস যে ভালোবাসায় বাঁধি খেলাঘর।
আজ যেন পৃথিবীতে সবচেয়ে মধুর শব্দ বলার একটি দিন।

আজ বিশ্ব মা দিবস। মে মাসের দ্বিতীয় রোববার বিশ্ব জুড়ে পালিত হয় ‘মা দিবস’। আমেরিকায় মায়েদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে ‘মাদারিং সানডে’ নামে একটি বিশেষ দিন উদযাপন করা হতো। এর পর আমেরিকার সীমানা ছাড়িয়ে মা দিবসটি সর্বজনীন হয়ে উঠে সারা বিশ্বে। উদযাপনের জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে বড়দিন এবং ভালোবাসা দিবসের পর মা দিবসের অবস্থান। সাধারণত সাদা কারনেশন ফুলকে মা দিবসের প্রতীক বিবেচনা করা হয়। এই দিনে সন্তানরা ফুল এবং নানা সামগ্রী উপহার দিয়ে এবং বাসায় কিংবা রেষ্টুরেন্টে মায়ের সাথে খাবার খেয়ে, অনেকেই ছুটি নিয়ে মায়ের একান্ত সান্নিধ্যে দিনটি কাটিয়ে দেয়। মাকে শ্রদ্ধা আর ভালবাসা দেখাতে নির্দিষ্ট দিনক্ষণ ঠিক করে নেয়ার যুক্তি অনেকের কাছেই সে ভাবে গ্রহনযোগ্য না হলেও অনেকেই মনে করেন মাকে সন্মান দেখাতে, তাকে গভীরভাবে মাকে স্মরণ করতে আন্তর্জাতিকভাবে পালিত আন্তর্জাতিক মা দিবসের গুরুত্ব রয়েছে। মাকে স্মরণ করে জগৎবিখ্যাত মনীষী আব্রাহাম লিংকন বলেছিলেন, ‘আমি যা কিছু পেয়েছি, যা কিছু হয়েছি, অথবা যা হতে আশা করি, তার জন্য আমি আমার মায়ের কাছে ঋণী’। জগতে মায়ের মতো এমন আপনজন আর কে আছে! তাই প্রতি বছর এই দিনটি স্মরণ করিয়ে দেয় প্রিয় মায়ের মর্যাদার কথা। মা মাটি আর মানুষের কথা।

হারাই হারাই ভয়ে গো তাই, বুকে চেপে রাখতে যে চাই
জানি না কোন মায়ায় ফেঁদে বিশ্বের ধন রাখব বেঁধে
আমার এ ক্ষীণ বাহু দুটির আড়ালে

.

প্রদায়কের ফেসবুক লিঙ্ক : আজাদ কাশ্মীর জামান।

VN:R_U [1.9.22_1171]
রেটিং করুন:
Rating: 5.0/5 (1 vote cast)
VN:R_U [1.9.22_1171]
Rating: +1 (from 1 vote)
মা দিবস … যে ভালোবাসায় বাঁধি খেলাঘর …, 5.0 out of 5 based on 1 rating

ফেসবুক ইউজার মন্তব্য

মন্তব্য (ফেসবুক )

এই পোস্টের বিষয়বস্তু ও বক্তব্য একান্তই পোস্ট লেখকের নিজের, লেখার যে কোন নৈতিক ও আইনগত দায়-দায়িত্ব লেখকের। অনুরূপভাবে যে কোন মন্তব্যের নৈতিক ও আইনগত দায়-দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট মন্তব্যকারীর।
▽ এই পোস্টের ব্যাপারে আপনার কোন আপত্তি আছে?

১৬ টি মন্তব্য (লেখকের ৮টি) | ৬ জন মন্তব্যকারী

  1. মামুনুর রশিদ : ১৪-০৫-২০১৭ | ২০:৩৩ |

    ‘মা শ্বাশত, চিরন্তন। শুধু বিশেষ দিন নয়; মায়ের প্রতি সন্তানের ভালোবাসাময় হোক প্রতিটি দিন। প্রতিটি সময়।`

    শুভেচ্ছা এবং সালাম রইলো স্যার। পৃথিবীর সব মা সুখী হোক…

    VN:R_U [1.9.22_1171]
    Rating: 0 (from 0 votes)
    • মুরুব্বী : ১৪-০৫-২০১৭ | ২৩:৩০ |

      শুভেচ্ছা আপনার জন্যও মি. রশিদ। পৃথিবীর সব মা সুখী হোক … https://www.shobdonir.com/wp-content/plugins/wp-monalisa/icons/wpml_flowers.gif

      VN:R_U [1.9.22_1171]
      Rating: 0 (from 0 votes)
  2. দাউদুল ইসলাম : ১৪-০৫-২০১৭ | ২০:৪৩ |

    VN:R_U [1.9.22_1171]
    Rating: 0 (from 0 votes)
  3. দাউদুল ইসলাম : ১৪-০৫-২০১৭ | ২০:৪৪ |

    জানি না কোন মায়ায় ফেঁদে বিশ্বের ধন রাখব বেঁধে
    আমার এ ক্ষীণ বাহু দুটির আড়ালে …

    শুভেচ্ছা ও বিনম্র সালাম রইলো স্যার

    VN:R_U [1.9.22_1171]
    Rating: 0 (from 0 votes)
    • মুরুব্বী : ১৪-০৫-২০১৭ | ২৩:৫২ |

      অনন্য এই দিবসে আপনার জন্যও শুভেচ্ছা এবং সালাম প্রত্যুত্তর স্যার। https://www.shobdonir.com/wp-content/plugins/wp-monalisa/icons/wpml_flowers.gif

      VN:R_U [1.9.22_1171]
      Rating: 0 (from 0 votes)
  4. সাইয়িদ রফিকুল হক : ১৪-০৫-২০১৭ | ২২:২১ |

    ভালো লাগলো। আর মা-দিবসের উদ্দেশ্য সফল হোক।

    VN:R_U [1.9.22_1171]
    Rating: 0 (from 0 votes)
    • মুরুব্বী : ১৪-০৫-২০১৭ | ২৩:৫৫ |

      সন্তানের প্রতি মায়ের এই ভালোবাসার কোন প্রতিদান হয় না। কখনও।
      স্বাগত শুভেচ্ছা এবং ধন্যবাদ মি. সাইয়িদ রফিকুল হক।

      VN:R_U [1.9.22_1171]
      Rating: 0 (from 0 votes)
  5. আনু আনোয়ার : ১৪-০৫-২০১৭ | ২২:৩০ |

    মা কথাটি ছোট্ট অতি, কিন্তু জেনো ভাই
    ইহার চেয়ে নাম যে মধুর ত্রিভুবনে নাই।

    মা দিবস আমার পছন্দ না। মা নিয়ে দিবস আমার কছে মনে হয় মাকে যেন ছোট করা।

    এবার আপনার পোস্ট নিয়ে বলি, অসাধারণ একটি পোস্ট। এরকম একটি তথ্য সমৃদ্ধ পোস্ট কে শব্দনীড় কেন স্টিকি করে না, সেটাই বুঝলাম না।

    VN:R_U [1.9.22_1171]
    Rating: 0 (from 0 votes)
    • মুরুব্বী : ১৫-০৫-২০১৭ | ০:০২ |

      ‘পরের কারণে স্বার্থ দিয়া বলি এ জীবন মন সকলি দাও,
      তার মত সুখ কোথাও কি আছে? আপনার কথা ভুলিয়া যাও।’

      … মমতার এই ছায়ায় পৃথিবীর সকল প্রাণী সুখি হোক। বিনম্র সম্মান। Smile

      VN:R_U [1.9.22_1171]
      Rating: 0 (from 0 votes)
  6. শাফি উদ্দীন : ১৫-০৫-২০১৭ | ১৫:৫০ |

    অতুল লিখা বন্ধু। সালাম রলো।

    VN:R_U [1.9.22_1171]
    Rating: 0 (from 0 votes)
    • মুরুব্বী : ১৫-০৫-২০১৭ | ১৬:৩৭ |

      অশেষ কৃতজ্ঞতা প্রিয় বন্ধু। সালাম উত্তর জেনো। Smile

      VN:R_U [1.9.22_1171]
      Rating: 0 (from 0 votes)
  7. হামিদুর রহমান পলাশ : ১৬-০৫-২০১৭ | ০:০২ |

    পৃথিবীর সবচেয়ে সুমধুর ডাক ‘মা’। আনন্দ, বেদনা আর কল্পরাজ্যের যতসব অনুভূতির আলোড়ন— সবই মাকে ঘিরে। ‘মা’ শব্দটি নিজেই একটি অসমাপ্ত গল্প, শ্রেষ্ঠ কবিতা, সময়ের সেরা উপন্যাস…মানব ইতিহাসের শুরু থেকেই ‘মা’ একটি গুরুত্বপূর্ণ শব্দ হিসেবে বিবেচিত। মা, মাদার, মম, মাম, আম্মা— যাই বলি না কেন, একজন সন্তানের কাছে তার মায়ের চেয়ে অধিক প্রিয় কোনও কিছুই এই পৃথিবীতে নেই।
    আপনার জন্যও অনন্ত শুভ কামনা।

    VN:R_U [1.9.22_1171]
    Rating: 0 (from 0 votes)
    • মুরুব্বী : ১৬-০৫-২০১৭ | ১৮:০৪ |

      সন্তানের কাছে তার মায়ের চেয়ে প্রিয় কোনও কিছুই এই পৃথিবীতে নেই। https://www.shobdonir.com/wp-content/plugins/wp-monalisa/icons/wpml_smile.gif

      VN:R_U [1.9.22_1171]
      Rating: 0 (from 0 votes)
  8. হামিদুর রহমান পলাশ : ১৬-০৫-২০১৭ | ০:৩৩ |

    মা

    মা শুধু প্রিয় শব্দই নয়, প্রিয় বচন, প্রিয় অনুভূতি, প্রিয় ব্যক্তি, প্রিয় দেখাশুনা, প্রিয় রান্না এবং প্রিয় আদর। যতগুলো প্রিয় আছে তার সব প্রিয়ই শুধুমাত্র মাকে কেন্দ্র করেই। পৃথিবীর ইতিহাসে সন্তানের জন্মদাত্রী হিসেবে প্রাকৃতিকভাবেই মায়ের এই অবস্থান। মানব সমাজে যেমন মায়ের অবস্থান রয়েছে। পশুর মধ্যেও মাতৃত্ববোধ প্রবল।

    VN:R_U [1.9.22_1171]
    Rating: 0 (from 0 votes)