revoti

কেমন আছিস রেবতি
এখনও কি ঘুড়ে বেড়াস ভীষণ রোদে
তামাটে করতে শরীরের রং।
ভরা জোৎস্নার রাতে
আনমনা হয়ে ভাবিস কি
সুহাসের কথা।

কী ভরাট ছিলো সময়গুলো
শরীর জুড়ে ছিলো নিটোল আনন্দ
কালো রাতের আকাশ ভরে
থাকতো চাঁদে।
এখনও কি তুই আগের মতো
হাসতে হাসতে লুটিয়ে পড়িস,
অভিমানে ডাগর চোখে আনিস
মুক্তো বিন্দু।

আর কতোকাল এভাবে দহন
করবি তুই। আর কতো
শোনাবি আরেকটু ধৈর্য্যশীল হও।

তুই ই তো বলেছিলি
পাথর সরালেই দেখবো প্রস্রবণ
পাথর ছুঁলে তো কেবল দেখি
সরীসৃপের মুখ !!

আমিতো জলরাশি চাই
পাথর সরিয়ে আমার তপ্ত
হৃদয়ে প্রবাহিত হোক সুস্বাদু ঝর্ণাধারা।

কেমন আছিস রেবতি
সুহাসের হাতটা মুঠোয় চেপে
বলতে কি ইচ্ছে করে না
ভালবাসি, ভীষণ ভালবাসি তোমাকে।

revoti1

উৎসর্গঃ প্রিয় ছোট ভাই রেজওয়ান তানিম কে।

VN:R_U [1.9.22_1171]
রেটিং করুন:
Rating: 0.0/5 (0 votes cast)
FavoriteLoadingলেখা প্রিয়তে নিন

মুরুব্বী সম্পর্কে

আমি আজাদ কাশ্মীর জামান। আছি মুরুব্বী নামের অন্তরালে। কবিতা পড়ি, কবিতা লিখার চেষ্টা করি। ভেতরে আছে বাউল মন। খুঁজে ফিরি তাকে। জানা হয়নি এখনো। ঘুরতে ঘুরতে আজ পৃথিবীর স্বর্গে। এখানেই পরিচয় হয়েছিলো, কবিতা পাগল এক মানুষের সংগে। নাম জিয়া রায়হান। যার কিছু শব্দকথা, এ্যাতোদিন ভরেছে আমার পাতা। উথাল পাথাল হাওয়া, হৃদয়ে জাগালো দোলা পেলাম কিছু সমমনা মানুষের দ্যাখা। দিনভর আর রাতভর শুধু কবিতায় গেলো বেলা। সব ছেড়েছি- সব পেয়েছি- ভুলতে পারিনি শুধু কবিতার অশ্রুসজল চোখ। ভালো লাগা থেকেই দু’ একটা শব্দ সাজাবার চেষ্টা করি। মাতাল বৃষ্টিতে ভিজে ভিজে মাটির কলসে, তবলার ধ্বণী তুলে গাইতে পারি বেসুরো গান- সুর নামের অন্তরালে। ভালোলাগে পোষা কবুতরের পালক ললাটে ছোঁয়াতে। ফুল থেকে রং নিয়ে, খেলি হোলিখেলা, হৃদয়ের উঠোনে। আজ তারি ধমকে এলাম স্বরূপে- স্বকথায় ভরাবো পাতা।   hits counter
এই পোস্টের বিষয়বস্তু ও বক্তব্য একান্তই পোস্ট লেখকের নিজের,লেখার যে কোন নৈতিক ও আইনগত দায়-দায়িত্ব লেখকের। অনুরূপভাবে যে কোন মন্তব্যের নৈতিক ও আইনগত দায়-দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট মন্তব্যকারীর।
এই লেখাটি পোস্ট করা হয়েছে কবিতা-এ। স্থায়ী লিংক বুকমার্ক করুন।