মামুনুর রশিদ-এর ব্লগ
তৃষ্ণা
তোমায় দেখতে ভালো লাগে
তাকিয়ে থাকি শুধু এ আবেগে
ডাকবো না কাছে কখনো তোমায়
বুঝতে পারো না চোখের ভাষায়
ঝুলে থাকি সারাক্ষণ একি তৃষ্ণায়
তোমায় দেখতে পেলে চাই না কিছুই। ফুল ফুটেছে কার আঙিনায়
চুপিচুপি তাই কাব্য লিখে যাই
ফুলের সৌরভে মাতোয়ারা মন
ফাগুনের আগুনে পোড়ে সারাক্ষণ
তোমায় একটু দেখার আশায়
কত স্বপ্ন সাজাই পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৬৪ বার দেখা | ৭৬ শব্দ
অদ্ভুত সুন্দর
দূর হতেই ভালো লাগে সুন্দর; কাছে এলে আরো তৃষ্ণাতুর
ধরা পড়ে যাবে ছলনা; পান করে কখনো কি মেটে পিপাসা?
তার চেয়ে কবিতা হোক জটিল- পঙক্তিতে ছড়ানো অমিল
স্বপ্নের মতোই উন্মুক্ত; পালানোর জন্য ঘুম চাই অন্তত
চোখ বুজলেই আসবে সে অদূর- এই মেঘ এই রোদ্দুর
কুয়াশার দেশে ফোটে যত পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৭৫ বার দেখা | ১০৫ শব্দ
কয়েকটি কবিতা
শীতের স্মৃতি শীতের স্মৃতি এখনো বাতাসে
ওম চাই জলে-স্থলে সবখানে
হলুদ বৃক্ষের নিচেই বসবাস
ক্যানভাসে থাকি চির সবুজ;
পায়ে পায়ে হেঁটে এলে ঢেউ
ভাসিয়ে দেব কাগজের নৌকা
বসন্ত নামে ডেকেছিল কেউ
বুঝতে পেরেছি কেবল তৃষ্ণা শীতের স্মৃতি এখনো গোলাপে
কুয়াশায় ভিজে গেছে ঘাস
সন্ধ্যার মতো নির্জন চুল
পাঁপড়ি ছিড়ছে অবাধ্য আঙুল। শয্যাশায়ী শিমুলের বনে শুয়ে থাকি পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৮৬ বার দেখা | ১৭৫ শব্দ
প্রিয় অসুখ
‘সুন্দর’ ভাবলেই বাড়ে অসুখ! দেখতে ইচ্ছে করে সে মুখ
আড়াল ভেঙে; কোথাও ফুটেছে নাম অজানা ফুল- অপরূপ
নির্জন বনে; বাতাস যখন সুবাস আনে- নেই তার খুঁত!
ভরে রাখি ফুসফুস- এই দূষণীয় যুগে এমন অদ্ভুত
রহস্যময়ী, তবুও অপলক থাকি চেয়ে- ভেংচি কাটুক!
দিতে চাই ডুব- সাঁতার না জেনেই পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১২০ বার দেখা | ১০৬ শব্দ
কে তুমি
কে তুমি নিজেকেই প্রশ্ন করো না
কি নামে ডাকবো ভেবে তো পাই না
হাসিতে মিশে আছো নাকি কান্নায়
জলে ডুবে থাকি কখনো ডাঙায়
সাঁতার শিখি নি, হাঁটতেও পারি না। চোখেচোখে আছো তবু আবছায়া
ভালোবাসা নাকি শুধুই মায়া
পথহারা যদি এই কুয়াশায়
দেখা দেবে কি আসক্ত জোছনায়
জানি রৌদ্রস্নানে তোমায় পাব না। নিঃশ্বাস পড়ুন
কবিতা | ৫ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৩৮ বার দেখা | ৭৯ শব্দ
জলের শরীর
তুমি এসেছিলে জলের শরীর
তৃষ্ণা বাড়িয়ে দিলে পৃথিবীর
ভয়ে ভয়ে মেলেছি চোখের পাতা
খুলে দিলে তুমি বুকের খাতা
কবিতা লিখেছি নূতন ভাষায়
তুমি অনুবাদ করো আমায়! ফুলের মতো ছড়াও মিষ্টি ঘ্রাণ
ঘাসে ঘাসে জাগাও শিহরণ
ভালো লাগে রোদের আলতো ঘুম
তুমি হাসো যখন নিঝঝুম; চাঁদের মতো তোমার উঁকিঝুঁকি
ডানা ঝাঁপটে রাতজাগা পাখি
রূপকথা রাজ্যে করেছি ভ্রমণ
পাই পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৯৮৭ বার দেখা | ৭৪ শব্দ
আগুন ফাগুন
আগুন ফাগুন নিপুণ দীপন হিরণ
অরুণ বরুণ মেরুন চরণ বরণ
মদন মোহন চন্দন বদন দর্পণ
স্রবণ রোদন নির্জন ত্রিকোণ চিক্কণ! চোখে তৃষ্ণা মুখে জোস্না বুকে কম্পন
ঠোঁটে মৃগয়া হাতে চিড়িয়া পায়ে নিক্কণ
হাসে তীর্যক ফাঁসে চাতক বৃষ্টি বর্ষণ
আছে চুম্বক থাকে উন্মুখ এ আকর্ষণ! আছে ছন্দ পাই গন্ধ জাগে শিহরণ
হই পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৫১৮ বার দেখা | ৭৩ শব্দ
অপরিচিতা কেউ
অপরিচিতা কেউ আঙুলে জাগাল ঢেউ
এই নিঝুম পুরীতে ঘুম ভাঙাল কেউ। কণ্ঠে তার মিষ্টি গান জুড়াল মনপ্রাণ
নেচে নেচে করছে সে ফাগুনের আহ্বান।
মেখে তার ঘ্রাণ মাতাল হল সমীরণ,
ফুলেরা ঝুঁকে ঝুঁকে করছে তাকে চুম্বন।
যত করি জোছনা পান লাগে শিহরণ
মায়াবিনী নিমিষে করেছে বশিকরণ! বুঝি না চোখের ভাষা বাড়ে শুধু পিপাসা
যতই পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১০৫ বার দেখা | ১০১ শব্দ
কখন হারিয়ে যাই
কখন হারিয়ে যাই জানি না নিজেই
কিছুক্ষণ থেকে যাই তোমার কাছেই হাসির ভাজে চেপে রাখা বিষণ্ন মুখ
বুঝতে পারে নি কেউ আমার অসুখ
এভাবেই নিভে যেতে আছি উন্মুখ
কিছুকথা চিরদিন গোপন থাকুক কখন যে মুছে যাই জানি না নিজেই
কিছুক্ষণ থাকতে চাই আশেপাশেই কার দুটি চোখে আছে আমার স্বপন
ইশারায় করতে পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২৫০ বার দেখা | ৮২ শব্দ
লিরিকগুচ্ছ ২
১।
নিরাসক্ত প্রেমের রোদে ভিজব আমি
নিঃশ্বাসে লেগে থাকো অপরাজিতা তুমি। যেদিকে তাকাই দারুণ বিভ্রম
ছড়িয়ে থাকো তুমি আঁচল নরম
মুগ্ধতায় ফোটে যদি কদম
বরষায় ভিজে যাই হরদম নিরাসক্ত প্রেমের বানে ভাসব আমি
নিঃশ্বাসে লেগে থাকো অপরাজিতা তুমি! হাঁটছি যখন আকাশে চেয়ে
জোছনা ছড়াও চাঁদনী মেয়ে
কবিতা নামে দু’চোখ বেয়ে
ঘাসে ঘাসে শিশির নিংড়িয়ে; নিরাসক্ত প্রেমের ঘ্রাণে পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৬০৬ বার দেখা | ২৩৪৬ শব্দ
মরে যাব
মরে যাব। মরে যাবে ইবলিশও। সবাই ধ্রুব নিঃসঙ্গ। মৃত পৃথিবীতে শুনব না আর কঙ্কালের অট্টহাসি! বিলুপ্ত হয়েছে দিগন্ত কত শতাব্দী মরে গেছে প্রিয় নদী। স্বর্ণজ্বরে আক্রান্ত কতকাল, ভস্মিভূত অরণ্যে রেখেছি ছাপ। এখনো ঘুমঘোরে শুনি পাখিদের আর্তনাদ। দুর্ভিক্ষ আসছে। ডাকছে খরা-জরা-মরা। কত বেশি করেছি পাপ! পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৮৫ বার দেখা | ৬৫ শব্দ
জল দিও না
জল দিও না- দিবসে মেটে না সূর্যের পিপাসা। রাতে সে যায় অন্য পাড়ায়, নীচ! রঙিন শরাবে ডুবে সাঁতরায় অনল। ভোরে সে তোমার ছোট্ট জানালায় উঁকি দেয়, বড্ড লাজুক মুখ! দুপুরে উত্তপ্ত ঠোঁটে গুঁজে রাখে জ্বলন্ত সিগারেট; বুভুক্ষু। লোলুপ দৃষ্টি হাঁটে ঘনঘন স্ফীত নদীর পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১০০ বার দেখা | ১২৭ শব্দ
ঢেউ দিও না
ঢেউ দিও না- মুহূর্তে ভেঙে যাবে বাঁধ। বন্যায় ভেসে যাব তোমার আশপাশ। ডুবে যাবে নিমিষে ঘড়বাড়ি, স্কুল, খেত খামার। জল ঢুকবে বাসে, ট্রেনে, মন্দিরে, উদ্যানে। ছড়াবে রোগ টিভি চ্যানেল, পত্রিকায়। সবাই অসুখী তবু পুষে রাখে প্রাচীন অসুখ। তৃষ্ণায় সাদা হয় সবুজ ঘাস। বাড়বে পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৮৫ বার দেখা | ৬৭ শব্দ
মেঘলা মেয়ে
ভালো লাগে ভিজতে এই শ্রাবণে
পুষে রাখি অসুখ শত শাসনে
যতবার অরণ্যে যাই ভ্রমণে
পথহারা মায়ামৃগ অন্বেষণে; মেঘলা মেয়ে দোলাও এলো চুল
বৃষ্টি হয়ে ফোটাও কদম ফুল
ছুঁতে চায় যতবার আমার আঙুল
অদ্ভুত শিহরণে হৃদয় ব্যকুল! রূপকথা জানে ওই চাঁদমুখ
চেয়ে থাকি নির্ঘুম উৎসুক
জলপরী কোথায় আছে নিশ্চুপ
এক নিঃশ্বাসে দিতে চাই ডুব; ডাকছে নির্জন রূপালী পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৯৩ বার দেখা | ৮৬ শব্দ
জলে ডুবে
জলে ডুবে মেটে না তৃষ্ণা
হেসে খুন হয় জোস্না। চোখ তার কাজল টানা
বুকে আছে সাপের ফণা
ছুঁলে তাকে কেউ বাঁচে না
জাগে তবু মরণ নেশা! জলে ডুবে মেটে না তৃষ্ণা
হেসে খুন হয় জোস্না। ঠোঁট তার তীব্র মাদক
ছদ্মবেশী যেন ঘাতক
চেয়ে আছে লক্ষ চাতক
মেটে না মনের পিপাসা! জলে ডুবে মেটে না তৃষ্ণা
হেসে খুন পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৮২ বার দেখা | ৭৮ শব্দ