অপূর্ণ ভালোবাসা

আমি শুধু ভাবি সেই দিনটির কথা যেই দিনে তোমার গায়ে লেগে যাবে লাল শাড়ির ছোঁয়া। প্রিয় সেই, গ্রামটিতে জ্বলে উঠবে লক্ষ -হাজার আলোকসজ্জা। তোমার বাড়ির আঙিনা মুখরিত হবে কত মন ভাঙা, হাসিখুশি মানুষের পায়ের ধুলাই। হ্যা, সেই দিনটির কথা বলছি যেই দিন তুমি হবে অন্য কোনো স্বপ্নের ঠিকানা। তোমার বাবার সঞ্চয়ের অর্থে জমে উঠবে বিয়ে … Continue reading “অপূর্ণ ভালোবাসা”

জীবনের গতি কখনো থামবার নয়

(১) জীবনের গতি কখনো থামবার নয়, সে ছুটে, কাউকে রাঙিয়ে, কাউকে ভাঙিয়ে। কে ক্ষুদার্ত তা সে দেখবার নই। কে দুঃখী, তা সে খুঁজবার নই। সময়ে মাপকাঠি কার কখন দেহ কাঁঠি তা সে বুঝবার নই। (২) বেকারত্বের তকমা গায়ে মাখানো প্রেমিক টি প্রেম করে চলেছে ভঙ্গুর ভবিষ্যতের উদ্দেশ্যে। মায়াবতী প্রেমিকা হাতছাড়া হচ্ছে ;নির্লিপ্ত চোখে তাকিয়ে সে … Continue reading “জীবনের গতি কখনো থামবার নয়”

একটি সিজদাহ্ হতে পারে জীবনের শ্রেষ্ঠ প্রশান্তি

আমরা কেনো এতো হতাশ? কেনো জীবনে এতো গতি চাই? আমাদের মন সর্বক্ষণ অকল্পনীয় গতিতে ছুটতে চায়। যখনই গতিতে একটু ভাঁটা পরে তখনই আমরা হয়ে যায় হতাশ! আমরা, আমাদেরই প্রভু, আমাদের সৃষ্টি কর্তা, যিনি আমাদের রিজিক দেন আমরা খাই, বাঁচি এবং মরি। যখন আমাদের জীবনে হতাশা,দুঃখ, ক্লেশ আছড়ে পরে তখন উনাকে দোষারোপ করি, প্রলাপ বকি! সে … Continue reading “একটি সিজদাহ্ হতে পারে জীবনের শ্রেষ্ঠ প্রশান্তি”

জীবনের গতি

(১) জীবনের গতি কখনো থামবার নয়, সে ছুটে, কাউকে রাঙিয়ে, কাউকে ভাঙিয়ে। কে ক্ষুধার্ত তা সে দেখবার নয়। কে দুঃখী, তা সে খোঁজবার নয়। সময়ে মাপকাঠি কার কখন দেহ কাঁঠি তা সে বুঝবার নয়। (২) বেকারত্বের তকমা গায়ে মাখানো প্রেমিক টি প্রেম করে চলেছে ভঙ্গুর ভবিষ্যতের উদ্দেশ্যে। মায়াবতী প্রেমিকা হাতছাড়া হচ্ছে ;নির্লিপ্ত চোখে তাকিয়ে সে … Continue reading “জীবনের গতি”

সমাজ গড়ার কারিগর

সমাজ গড়ার কারিগর হে প্রিয় শিক্ষক। তোমাদের ঘরে নাই বাজার-সদাই!তা দেখে করবার নাই কোনো নিরীক্ষক। যা মাইনে পাইতা অতীতে, তাঁহাতে চলতো সংসার কোনো মতে। তবে, আজিকা সেই মাইনে পাওয়ার রাস্তায় নেমে এসেছে কুয়াশা। তাই তো মনে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা! ত্রানের লেশমাত্র অবলোকন করো নাই চক্ষে, তোমার মনে ভয়, এই বুঝি মান যাচ্ছে। ঘরের ঘরণী চিক্কুর … Continue reading “সমাজ গড়ার কারিগর”

সময়ের র্কম সময়ে

পিপীলিকা হতে, যদি নাও শিক্ষা এক রত্তি, তুমি আমি দেখাতাম না, দুর্বলের উপর শক্তি। মানবতাকে করতাম সবে মিলে সত্যি, সত্যি ভক্তি। ক্ষুদ্র পিপীলিকা হতে শুনেছিল বাদশাহ সুলেমান নানা রঙের যুক্তি, কোরআনে আছে পিপীলিকার নামে কত গুণ কীর্তি। বুঝে না-ও, দেখে না-ও, তাদের থেকে শিখে না-ও কী করে মিলবে মোদের মুক্তি একতাবদ্ধতা, সততা আর নিষ্ঠা, অবলোকন … Continue reading “সময়ের র্কম সময়ে”

সংকটময় সময়

ঘরে নাই অন্ন, ক্ষুধা নিবারনে জীবন প্রায় বিপন্ন! কার কাছে চাহিব ভাত? আমার যে করে লাজ। নাই চাকরি, নাই তো বাকরি। টাকা নাই, পয়সা কই পাই? চাল নাই, ডাল নাই, নাই মশলা পাতি। খাদ্যের অভাবে মরবে এই জাতি। নাই, নাই, নাই। আমার চাহিদার অন্ত নাই। পূর্ণ করবার রাস্তা-বন্ধ। খুলবার নাই, নাম-গন্ধ। আমার খাবার কে দিবি? … Continue reading “সংকটময় সময়”

ভাসমান মেঘমালা

দেখেছ নিশ্চয়ই, সুনীল আসমান তাঁর মাঝে আর-ও দেখেছ ভাসমান মেঘেদের মেলা। যাঁরা ছুটে চলে নিরলস, ভেসে বেড়ায় দেশ হতে দেশান্তর। কত-শত নগর,শহর পেরিয়ে চলে ক্ষণেক্ষণে সময়ের আবডালে । যেখানেই ঝরবার নির্দেশ পায় তাঁরা, বৃষ্টি হয়ে আছড়ে পরে, দেশ হতে দেশান্তরে, শত-শত নগর শহরে। তথাপি, বর্ষন শেষে কোমল হৃদয়ের মতো প্রিয় ভূমি ও হয়ে উঠে শস্য … Continue reading “ভাসমান মেঘমালা”

ভালোবাসায় ভেজানো রাত

কোনো এক নিশ্চুপ রাতে, নির্মল বাতাসে। ধান ক্ষেতের মাঝেই দাঁড়িয়ে ছিলাম। মাস টা ছিলো বৈশাখ। সময় টা বৈশাখের দিন পনেরোর এক রবিবার রাতের কথা। মনে ছিলো বেশ প্রেমের ঝটকা। হুটহাট মনে হয়ে যেতো প্রিয় তোমার কথা। সেই রাতে ও, তুমি এসে আটকে গেলে মনে। তবে,তুমি সেই রাতে এলে গাঢ় অন্ধকার হয়ে। যখনই, তোমার চিন্তায় আমি … Continue reading “ভালোবাসায় ভেজানো রাত”

নিষিদ্ধ কর্ম

নিষিদ্ধ কর্ম

যুবক তোমাকেই বলছি, শুনো। জগতের সকল পাপ করতে তোমার মন চাইবে, যৌবনের উষ্ণতায় তুমি শক্ত পাথর হয়ে রবে। যুবতী মেয়েদের বুকে তুমি চোখ রাখবে, হাতে হাত ধরতে মন ছুটবে। কিন্তু না, এ-তো ধর্মে নিষিদ্ধ! চোখ নামাও, হাত ছাড়ো। মন তোমার উড়ুক্কু হবে, নষ্ট প্রায় হয়ে যাবে। ধর্ষন কিংবা জেনা করতে যৌবন তাড়না দিবে। কিন্তু এ-তো … Continue reading “নিষিদ্ধ কর্ম”