সৈয়দ মুহাম্মদ আজম-এর ব্লগ

“যে জীবন ফড়িঙের, দোয়েলের–
মানুষের সাথে তার হয় না’কো দেখা।”

পড়া, লেখা আর ঘুরা- এই নিয়েই আমি চ্যাংড়া থেকে হতে চাই বুড়া। কবিতার প্রতি মোহ নাকি হৃদয়ের টান -জানিনা। অলক্ষে থেকেও হৃদয়ের মর্মকথা পৌঁছাতে চাই দিগন্তের বাঁকে বাঁকে।

একঝাঁক স্বপ্ন বুকে- নিত্যি ছুটি দিকে দিকে…

খেলার আগেই বিজয়ী যারা!
খেলার আগেই বিজয়ী যারা!
ফুটবল কিংবা ক্রিকেট- বিশ্বকাপ আসলেই উন্মুখ হয়ে থাকে খেলাপ্রেমীরা। তবে খেলার চেয়েও বেশি কৌতূহলী- কোন দল জিতবে বিশ্বকাপ? এ নিয়ে খেলা শুরুর কিংবা দিনক্ষণ ধার্যের অনেক আগ থেকেই চলে জল্পনা-কল্পনা, তর্ক-বিতর্ক। ভালো লাগা বা ভালোবাসার জায়গা থেকে অনেকেই তার পছন্দের দল পড়ুন
বিবিধ | ২ টি মন্তব্য | ২৮ বার দেখা | ২২০ শব্দ ১টি ছবি
ধূসর নিনাদ
ধূসর নিনাদ
সুন্দর, তুমি চক্ষু ভরিয়া
এনেছ অশ্রুজল।
এনেছ আমার বক্ষ ধরিয়া
দুঃসহ হোমানল। হৈমন্তিক হাওয়ায় অঘ্রায়ণের ধান ক্ষেতে আমার বৈরাগী মন দোলে। শরতের আকাশে শুভ্র মেঘের ভেলা, পারদ নামায়— রঙিলা মাঝি জীবন নদীতে উজান বায়। নির্মোহ আমি বিজনে বসে অহর্নিশ তোমার প্রহর গুনি! আমার মৌন অবগাহনে পড়ুন
সাহিত্য | ২ টি মন্তব্য | ৫০ বার দেখা | ১০৬ শব্দ ১টি ছবি
টিম্বাকতু
টিম্বাকতু
বিস্তির্ণ প্রেইরি নয়-
ছুঁই ট্রপিক্যাল নিষ্পাদক প্রান্তর,
অলসভাবে বহমান নদ-নদী
ধরিত্রীর বুক ছিন্ন ভিন্ন করে বয়ে যায়। শ্রাবণের প্লাবনে পুষ্টিবর্ধক ভূমি
গুল্ম, ঝোপ, ক্বচিৎ ঘাসে পূর্ণ হয়;
গ্রস্ত উপত্যকা, পর্বত, মালভূমি পেরিয়ে
সতেরোটি নীল পদ্ম এনেছি, চন্দ্রমহিনী।
বহু দীর্ঘ, শীর্ণ, গভীর হ্রদের পদ্ম! অবিরাম রোদে পুড়ে দগ্ধ হয়েছি,
চির হরিৎ পড়ুন
ইতিহাস-ঐতিহ্য, কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ৩৯ বার দেখা | ৫৪ শব্দ ১টি ছবি
পরিবহন কথা
পরিবহন কথা

প্রতীকি ছবি মিনিট দশেক অপেক্ষা করে বাস পেলাম। বাসে উঠতে না উঠতেই দুজন দীর্ঘদেহী মানবের বাঁধায় থমকে গেলাম; পথ আটকে দাঁড়িয়েছিলেন। দরজায় দাঁড়িয়ে থাকলাম কিছুক্ষণ। পরের স্টপে আরও কয়েকজন বাসে উঠছে দেখে ভিতরে যাওয়ার চেষ্টা করলাম। কিন্তু না, সেই দীর্ঘদেহী পড়ুন
অণুগল্প, সমকালীন | ১টি মন্তব্য | ৩৬ বার দেখা | ২০৫ শব্দ ২টি ছবি