জাহাঙ্গীর আলম অপূর্ব-এর ব্লগ

জাহাঙ্গীর আলম অপূর্ব সিরাজগঞ্জ জেলার রায়গঞ্জ উপজেলার নলছিয়া নামক গ্রামে ১০ ই জুন ২০০১ সালে জন্ম গ্রহণ করেন।
তার লেখা গুলো বাস্তব ধর্মীয়। লেখা তার নেশা।
সবচেয়ে বেশি ভালো লাগে কবিতা লিখতে।

* চরম মুর্খ সেই যে শিক্ষা অর্জন করে নিজের মাতৃভাষা শুদ্ধ ভাবে বলতে পারে না ।
* আমার কাছে আনুষ্ঠানিক শিক্ষা পদ্ধতি থেকে অনানুষ্ঠানিক শিক্ষা পদ্ধতি শ্রেষ্ঠ।

কৈশোরের স্মৃতি
স্বরবৃত্ত ছন্দঃ৪৪/৪২ কৈশোরের ওই স্মৃতি গুলো খুবই পড়ে মনে
ইচ্ছে মতোন ঘোরাঘুরি বন্ধুদের ওই সনে।
কৈশোরের ওই দিনগুলো কি যাই রে কভু ভোলা
কৈশোরের ওই কথা মনে দেয় যে ভীষণ দোলা। হাসি মজার সময় গুলো গেছে কবে চলে
কৈশোর কেটে যৌবন আসে কভু কিরে বলে। পড়ুন
কবিতা, ছড়া ও পদ্য | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৪ বার দেখা | ১৪৬ শব্দ
রঙের খেলা
৪৪/৪২ রঙের শোভায় আত্মহারা
ভালোবাসা ফুলে,
হৃদয় সহে কাঁটার আঘাত
যায় রে পুষ্প কুলে। পবিত্র প্রেম বিরহে গাঁথা
মনে জাগে আশা
প্রেম কাননের ধারে গিয়ে
খুঁজে পায় না ভাষা। সহে হৃদয় কাঁটার আঘাত
সহে নাহি কথা
মন মালিন্য হলো পারে
প্রাণে লাগে ব্যথা। যেমন আছে পাতার পড়ুন
কবিতা, ছড়া ও পদ্য | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১০ বার দেখা | ৬৮ শব্দ
ব্যথার কথা
১৪/৪৪ আজ ভেবে ছিলাম
লিখবো শুধু প্রেমের কথা
না শুধু লিখলাম
বুক ভরা ওই দারুণ ব্যথা। আজ শুধু মনে
চাই যে ওগো বন্ধু তোমায়
চাই প্রতি ক্ষণে
তুমি ডাকবে কবে আমায়। চাই আমি শুধু
সুন্দর রাঙা ওই না বধু
থাক বলে দাদু
খুব হয়েছে কাব্য শুধু। পাই পড়ুন
কবিতা | ৬ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪৪ বার দেখা | ৭৭ শব্দ
প্রেম ভালোবাসা
৪২/৪২/৪৪ প্রিয়া তোমার কথা—— প্রাণে লাগে ব্যথা
ভাবি আমি মনে মনে
শুনব নতুন শব্দ—– কেটে যাবে অব্দ
সেই কথা মন ছুয়ে ক্ষণে। দিয়ে নিত্য আশা ——— কেড়ে ন্যায়’রে ভাষা
বলি না তো আমি কিছু
তার প্রেমের ওই আগুন ——- বসন্ত আর ফাগুন
ঘুরি পড়ুন
কবিতা | ৬ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪৮ বার দেখা | ১২১ শব্দ
রূপবতী ললনা
৪৪/৪১ রুপে গুনে স্বরস্বতী
লক্ষীবন্ত ওই মন,
হাসি মজা নানা খেলা
চলে সবার ওই সন। দৃপ্ত পায়ে হেঁটে চলা
ইচ্ছে খুশি মত,
তার যে রুপের শোভা বলতে
করণিক যে শত। দেখে যেজন প্রেমে পড়ে
রূপবতীর যে রুপ,
পূজা করতে লাগে যেমন
আগর বাতি আর ধুপ। মন ছুয়ে যায় তারই রুপে পড়ুন
কবিতা, ছড়া ও পদ্য | ৬ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৫৩ বার দেখা | ৬৮ শব্দ
সুদের টাকায় সব
৬৬৬২ সুদের টাকায় ভোজন রে ভাই
সুদের টাকায় বাড়ি
সুদের টাকায় বিশাল বিশাল
কিনছো অনেক গাড়ি। সুদের টাকায় ভোজন তোমার
মুখে চমৎকার বুলি,
সাধুর পোশাকে সাধু সেজে ভাই
দিনেই ছাড়ায় ধুলি। কোনটি সঠিক কোনটি বেঠিক
বোঝার সময় নাই
পাপে পাপে নষ্ট জীবন
শুধুই টাকায় চাই। সুদের টাকায় মন ভরা পড়ুন
কবিতা, ছড়া ও পদ্য | ৮ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১১ বার দেখা | ৭৬ শব্দ
বাজেট
সব জিনিসে দাম বেড়েছে
সংসদেই বাজেট পাশ,
দিশেহারা যে দেশের লোকে
বাজারে গেলে নেই যে আশ। জনগণের কথা ভেবেই
বাজেট পাশ করতে হবে,
নইলে দেশে নর মরবে
না খেয়ে ধুঁকে ধুঁকেই তবে। লকডাউন দিয়ে শাসক
বন্ধ করো রেখেছে সব
ক্ষুধার জ্বালা পেটে ঋণের
সকলে করে পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৩২ বার দেখা | ৭৮ শব্দ
আশার জন্য
মনে কিছু আশা শুধু ভালোবাসা
আর চাই নাহি কিছু,
ওই চোখ দুটি সদা আছে ফুটি
ঘুরি আমি পিছু পিছু। বুক ভরা আশা মনে জাগে ভাষা
বলবো তোমার সনে,
দিয়ে হাতে হাত হবে বাজি’মাত পড়ুন
কবিতা | ৫ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৯ বার দেখা | ১১২ শব্দ
আষাঢ়
আষাঢ়
আষাঢ় মাসে বাদল ধারা
কাঁদায় হাঁটা কষ্ট,
বাড়ির পাশে রাস্তা সব
ভেঙে হয়েছে নষ্ট। বৃষ্টি পড়ে টিনের চালে
রিমঝিম রে শব্দ
শাপলা তুলে তুলে’রে ভাই
কাটে যাক না অব্দ। বর্ষাকালে দেয়ার ডাক
শুনে শুনেই শক্ত,
ব্যাঙের গানে ভরা এ প্রাণে
সতত হই পড়ুন
ছড়া ও পদ্য | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৫ বার দেখা | ৬৯ শব্দ ১টি ছবি
ঋতুচক্রে বাংলাদেশ
৬৬/৬২ মাত্রা বৃত্ত বাংলাদেশের ষড়ঋতু ওই
আসে নানাভাবে তাই
এমন স্নিগ্ধ পরিবেশ বুঝি
ধরা বুকে কভু নাই। হঠাৎ বৃষ্টি বর্ষাকালের
থামে না’তো কভু
বর্ষার রাণী যে কদম কেয়া
ফুটে যায় ভাই তবু। নদীর তীরের ফোটে কাশফুল
ইচ্ছে করে তুলে নিতে
শীতের হিমেলে খেজুরের রস
পিঠাপুলি ওই গীতে পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৫ বার দেখা | ৭৪ শব্দ
ভাত দে
৪৪/৪২ ভাত দিলো না মরার আগে
মরার পরে কাঁদে
আসলে ফিরে মাতা পিতা
রাখবে বলে চাঁদে। ক্ষুধায় ভরা আমার পেটে
পড়েনি তো কিছু,
একটু খাদ্যের জন্য আমি
ঘুরেছি যে পিছু। এখন আমার মুক্ত জীবন
থাকি সদা একা
চাইলে আমি পাবে না তো
স্বজনের ওই দেখা। পড়ুন
ছড়া ও পদ্য | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪ বার দেখা | ৭২ শব্দ
একতা
৪৪/৪২ ঐক্য গড়ো বাঙালি সব
বাড়াও মনের শক্তি
মুজিবের ওই জন্য অশেষ
বাঙালির মন ভক্তি। পাকদের থেকে রক্ষার জন্য
বাঙালি ওই রক্ত
কষ্টে কষ্টে বাংলার মানুষ
হয়েছে রে শক্ত। যোগ্য নেতা ছাড়া যুদ্ধে
জেতা যায় না কভু
যুদ্ধ করে বাংলার মানুষ
মুক্তি পেল তবু। নিজের কথা পড়ুন
ছড়া ও পদ্য | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪ বার দেখা | ৭৪ শব্দ
শ্রমজীবী মানুষ
৪৪৪১ জগজ্জুড়ে শ্রমজীবীর———- নেইতো কভু তুল
জগতের এই উন্নয়নের———–তারাই হলো মুল।
অবহেলা করাে না ভাই————-সম্মান টুকু দাও
তারাই দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান——-কাছে টেনে নাও। শ্রমজীবীর গায়ের ঘামে———–তৈরি ধরার সব
মালিক শ্রেণির শোষণ থেকে——রক্ষা করো রব।
শ্রমিক হলো দেশের স্তম্ভ ——— তাদের সম নাই
আধুনিক এই সভ্যতার যুগ———- মর্যাদাটা চাই। পড়ুন
ছড়া ও পদ্য | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪১ বার দেখা | ১২২ শব্দ
মনোভাব
স্বরবৃত্তঃ ৪৪/৪২
মাত্রা বৃত্তঃ ৫৫/৫২ পরের ক্ষতি মন্দ অতি
বুঝবে সবে কবে,
জীবন সুখে নিজের বুকে
তীর বিঁধিবে যবে। পরের ক্ষতি করতে অতি
মনের লাগে ভালো
নিজের কাজে নানান সাজে
ধরা ভীষণ আলো। পরের ক্ষতি জীবন গতি
নষ্ট করে কভু
চাইবে যতো পাইবে ততো
শুদ্ধ নারে তবু। পরের পড়ুন
ছড়া ও পদ্য | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৩৭ বার দেখা | ৭২ শব্দ
বৃক্ষ পরম বন্ধু
৪৪/৪১ বৃক্ষের ছায়া সবুজ মায়া
শীতল করে প্রাণ,
বৃক্ষের শাখায় বসে পাখি
গায় যে সদা গান। রাখাল বসে বাজায় বাঁশি
ধরে সুন্দর গান
কিচিরমিচির শব্দ মধুর
জুড়ায় মন আর প্রাণ । বৃক্ষ থেকে অক্সিজেন পাই
তাতে বাঁচে প্রাণ
অক্সিজেন কি কিনলে রে ভাই
বাঁচবে মানব জান। বৃক্ষ সদা পড়ুন
ছড়া ও পদ্য | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২২ বার দেখা | ৬৯ শব্দ