এম এ বাসেত-এর ব্লগ

সাংবাদিক এম.এ. বাসেত গত ১৯৮৫ খ্রি. তেঁতুলিয়া সদরের বারঘরিয়া গ্রামের এক মধ্যবিত্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মো. নিজাম উদ্দিন, মাতার নাম মোছা. আয়েশা খাতুন। পরিবারে ৬ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে তিনি সপ্তম। শৈশবে তেঁতুলিয়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫ম শ্রেণি পাসের পর কালান্দিগঞ্জ ফাযিল মাদরাসা থেকে দাখিল/এসএসসি সমান বোর্ড পরীক্ষায় ১৯৯৯ খ্রি. দ্বিতীয় বিভাগে উত্তীর্ণ হন। ২০০৩ খ্রি. তেঁতুলিয়া ডিগ্রী কলেজ থেকে মানবিক বিভাগে এইচ.এস.সি বোর্ড পরীক্ষায় জিপিএ ২.৫০ পেয়ে সাফল্যের সংগে উত্তীর্ণ হন। ২০০৭ খ্রি. সালে মকবুলার রহমান সরকারি কলেজ পঞ্চগড় (পঞ্চগড় এম আর কলেজ) থেকে ইতিহাস বিভাগে বিএ (অনার্স) পরীক্ষায় ২য় শ্রেণিতে এবং ২০০৮ খ্রি. রংপুর কারমাইকেল বিশ্ববিদ্যালয়/কলেজ থেকে ইতিহাস বিষয়ে মার্স্টাস ডিগ্রী অর্জন করেন।
তিনি শৈশবে কবিতা ও ছোট গল্প লিখার মধ্যে দিয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের সহযোগিতায় ২০০০ সালে দিনাজপুর জেলার পাবর্তীপুর উপজেলা থেকে প্রকাশিত দৈনিক উত্তরের আলো পত্রিকার মাধ্যমে মফস্বল সাংবাদিকতা শুরু করেন। পরবর্তীতে ২০০১ সাল থেকে দৈনিক করতোয়া পত্রিকায় তেঁতুলিয়া উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে অদ্যাবধি কাজ করে আসছেন। এছাড়া ২০০৪ সালে দৈনিক আমার দেশ পত্রিকায় তেঁতুলিয়া উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হন। বর্তমানে তিনি দৈনিক নয়াদিগন্ত পত্রিকায় তেঁতুলিয়া উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করে আসছেন। তিনি দৈনিক করতোয়া পত্রিকার উপসম্পাদকীয় পাতায় বিভিন্ন বিষয়ে নিয়মিত কলাম লিখে আসছেন। ইতোমধ্যে তাঁর অর্ধশতাধিক কলাম প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া ২০১৭ সালে অমর একুশে গ্রন্থ মেলায়, শিক্ষা তথ্য পাবলিকেসন্স থেকে তাঁর লিখা ‘‘ লাল সবুজের পতাকা হাতে যুদ্ধা ফিরে ঘরে” এবং ”স্মৃতির কাছে’’ নামে দুটি কাব্যগ্রন্থ বই প্রকাশ হয়েছে।
তিনি যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর থেকে ঋণ সহায়তা নিয়ে ২০০১ সালে তেঁতুলিয়া উপজেলায় জেনুইন কম্পিউটার কমপ্লেক্স নামে একটি কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টার চালু করেন। পরবর্তীতে উক্ত ট্রেনিং সেন্টারটিকে বাংলাদেশ কম্পিউটার এডুকেশন (বিসিই) তেঁতুলিয়া শাখা হিসেবে রুপান্তর করেন এবং পরিচালক ও ট্রেইনার হিসেবে বেকার-যুবক/যুব মহিলা ও ছাত্র-ছাত্রীদের আত্মনির্ভরশীল প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছেন। তিনি ২০০৪ সালে পঞ্চগড় জেলার শ্রেষ্ঠ যুব সংগঠক নির্বাচিত হয়েছিলেন।

স্বর্গের দেশ
ঘুষ-দুর্নীতি দেশে যা কিছু কালো
দূর হোক আঁধার জ্বালাব আলো
সৎ সংঘ গড়ি দেশ চালাব ভালো
নতুন এক বাংলা প্রজন্মকে দিব। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম পাবে সুন্দর দেশ
মিলেমিশে গড়ি ভুলে যাব রেশ
দলাদলি সংঘাত সব হোক শেষ
দশে মিলে গড়ি এই বাংলাদেশ। বেকারত্ব দূর হোক উন্নত শির
জাতি মুক্তি পাবে শান্তির নীড়
নারীর পথচলা পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৮৩০ বার দেখা | ৬৮ শব্দ
শীত সরগম
পঞ্চাশ বছর পর দেশে শীতের সেরা তেঁতুলিয়া
সংবাদে হৈচৈ শিরোনাম উত্তরজনপথের শীত
আত্মীয় স্বজনের খোঁজ তোরা কেমন আছিস
ঠান্ডা নিবারণে বেশি জামাকাপড় পড়ে নিস। আঠারো সালের আট জানুয়ারী স্মরনীয় দিন
উনিশশত আটষট্টি সালে শ্রীমঙ্গল শীতে মিল
দুই দশমিক ছয় ডিগ্রি ছিল ঠান্ডার আভাস
মিডিয়ায় সরগম তেঁতুলিয়ায় তীব্র ঠান্ডা তাপ। পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৫৪৭ বার দেখা | ১১৯ শব্দ
অভিমানে অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ (পুর্ব প্রকাশের শেষ অংশ)
সাজেদুল বাড়ি থেকে বের হওয়ার তিন বছর পেরিয়ে গেলো। একদিন বাগানের ম্যানেজার জিজ্ঞাস করল; তুমি কোন শ্রেণী পর্যন্ত পড়েছ। স্যার, ৬ষ্ঠ শ্রেণী, পড়া শোনার ব্যাপারে মা’র সাথে অভিমান করে বাড়ি ছেড়ে চলে এসেছি। ম্যানেজার, দূরত্ব তাকে অফিসে কাজ দেয়ার কথা মনোস্থ করেন। কিন্তু উপর্যুক্ত পড়ুন
গল্প | ৫ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৮০৪ বার দেখা | ৪৯৮ শব্দ
অভিমানে অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ
# পুর্বে প্রকাশের পরের অংশ # কাকা বাবুর ঠিকানা পেয়ে সাজেদুলের মনে সাহস হলো। ভাবছে একটি অচেনা শহরে কাকা বাবুর মাধ্যমে একটা কাজ খোঁজে নিতে পারব। মাঝ দুপুরে একটি মোড়ে যাদু করের মজমা দেখল। সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত শহরের অলিগলি ঘুরে বেড়াল। কিন্তু তাকে কিছু ভাল পড়ুন
গল্প | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪৯৫ বার দেখা | ৫৭৭ শব্দ
অভিমানে অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ
সাজেদুল ক’দিন আগে মায়ের সাথে অভিমান করে বাড়ি ছেড়ে অজানা অচেনা শহরে এসেছে। সিলেটের উঁচু ঢিপির উপর বাড়ি, গাছপালা, চা বাগান দেখে তার মন জুড়িয়ে গেছে। দিনের বেলায় বেশ ঘুরাঘুরি করতে শেষ। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসছে কোথায় যাব; কোথায় থাকব ইত্যাদি চিন্তায় শহরের পথ চলছে। পড়ুন
গল্প | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৭৬০ বার দেখা | ৬৬৭ শব্দ
পরকাল ঘিরে
চলতে ফিরতে হিসাব করি দুনিয়াদারী
ধন সম্পদ গড়তে হবে চল ফিকির করি
সম্পদ এলো ঘরে দেউলিয়া হই ভবে
দেমাকে ধ্বংস তারা দুনিয়ার ঘরে। ন্যায়-অন্যায় মানি নাকো অর্থ অর্জনে
যত পাই তত চাই দুনিয়ার ঘরে ঘরে
ঢের সম্পদ জমা হলে অংহকারে মরে
যার পরানে ধ্বংস হলে মানবের তরে। দুনিয়াবী ফিকিরে থাকি পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪৩৩ বার দেখা | ৮৩ শব্দ
ভোর বেলা
আজ ভোরে প্রার্থনা করি
নানা পাখির গান শুনি
প্রাণ ভরে শ্বাস নিলাম
সতেজ বায়ু শরীরে ধরি। বাড়ির পাশে আম বাগান
কোকিলের ডাকে ভরে প্রাণ
ঘুঘু পাখি ছুটাছুটি সাথে গান
ঘাসে শিশির কনা স্বর্ণের মান। আকাশে সাদা মেঘের ভেলা
মেঘের ঠেলাঠেলি বসে মেলা
রবির হাসি আকাশের বুকে
প্রকৃতি ভরা সুন্দর কুদরতে। দিন ভাল যাক করি পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৮২৭ বার দেখা | ৭৭ শব্দ
সৎ অর্থে জয়
অর্থ চাই-অর্থ চাই চলতে ফিরতে অর্থ চাই
অর্থ যখন অনর্থের মূল জীবন বাঁচা দায়
অর্থ দিয়ে ভাল মন্দ দুনিয়ায় করা যায়
অভাবের মাঝে গড়েছি সুখ তাতে ভাই। শোকর গোজার করি নাকো আরো অর্থ চাই
দুনিয়া নিয়েই ভাবি শুধু পরকাল ভুয়ে যায়
অসৎ অর্থই গড়া সংসার তিলে তিলে ছাই
সন্তানাদি নষ্ট পিতার পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪৩৩ বার দেখা | ১০৭ শব্দ
বিশ্ব মনুষ্যহীন অন্ধ সূচি
অনেক হয়েছে দাঙ্গা ফেসাৎ এখন আর নয়’
দেশের কল্যাণে প্রত্যেকে করি জীবনের জয়
সময় থাকতে করব কল্যাণ দেশ মাতৃকার
মানব সেবায় নাম লিখাব দীর্ঘ পথ চলার। চারদিকে হানাহানি ধর্ষণ আর খুনের সংবাদ
সভ্য এই মানব সমাজে কেন হবে হীন কাজ
প্রত্যেকে মোরা পড়ের তরে বিলিয়ে দিব প্রাণ
অসহায় মানুষের পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৫৩৪ বার দেখা | ১২৫ শব্দ
ঘুষের আরেক নাম স্প্রীট মানি!
সভ্যতার আদি থেকেই মানব সমাজে দূর্নীতির অস্তিত্ব ছিল; যা এখন আরও প্রকটভাবে বিদ্যমান। প্রকৃতপক্ষে মানুষের সীমাহীন চাহিদা ও লোভ এবং সীমিত সাধ্যের মধ্যে থাকার যে সংঘাত, তা থেকেই দূর্নীতির উদ্ভব। বিভিন্ন প্রাচীন র্ধমগ্রন্থে দূর্নীতি বিরোধী বক্তব্য পরিলক্ষিত হয়। পবিত্র কোরআন, বাইবলে, বেদসহ নানা র্ধমগ্রন্থে পড়ুন
সমকালীন | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৫০৪ বার দেখা | ১২৮৮ শব্দ
ভৌগোলিক তেঁতুলিয়া
সাত ইউনিয়ন সীমানা ছয় নদী ধারে
বাংলাবান্ধা শেষ তিরনই নদীর পাড়ে
তিরনইহাট সীমানা ধরি নদীর দক্ষিণে
তেঁতুলিয়া শুরু রণচন্ডি নদীর কিনারে। শালবাহান সীমানা বেরং নদী ঘেঁষে
বুড়াবুড়ীর শুরু ডাহুক নদীর শেষে
ভজনপুর শেষ নদী করতোয়া বেশ
দেবনগড় শুরু তেঁতুলিয়া থানা শেষ। পিকনিক কর্ণার ডাকবাংলো ধরে
মহানন্দার ধারে পর্যটক মন পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৫০০ বার দেখা | ১১১ শব্দ
ভাদ্রের দিনে
ভাদ্র-আশ্বিনে মেঘের ডাক
শরৎ ঋতু দু’মাস
ভর দুপুরে কালো মেঘ
বিজলী ভয়ে দিন শেষ। বজ্র কন্ঠে মেঘের ডাক
বিকম্পিত ঘর শিরে বাজ
বৃষ্টি যখন থেমে গেলো
চারদিক আঁধার হলো। পাখ-পাখালি নীড়ে ফিরে
জেলে ছুটে নদীর তীরে
টোপর মাথায় রাখাল ছুটে
গোঁধুলী বেলা আলো ফুটে। বিকট শব্দে ভয় ধরে
সতেরো ভাদ্র বিকাল পড়ে
মুষল ধারে বৃষ্টি পড়ুন
ছড়া ও পদ্য | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪৪৮ বার দেখা | ৬৩ শব্দ
রহিঙ্গা মায়ের আর্তনাদ
প্রাচীন কালে আরাকান মায়ানমারে অবস্থান
রোহিঙ্গা মুসলিম নিধনে বুদ্ধিস্টের শ্লোগান
হেলিকপ্টারে ফেলে বোমা নিষ্ঠুর নির্যাতন
ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিলো ক্ষ্যান্ত হয়নি মন। নারী শিশু বাস্তুহারা নির্যাতনের বিভীষিকা
মায়ানমার আকাশে রোহিঙ্গা লাশের ধোঁয়া
বাঁচাও বাঁচাও নারী শিশুর করুণ চিৎকার
বিজেপি সেনার মন গলেনা করছে উল্লাস। নাফ নদী দেয় পাড়ি একটু ঠাঁই পাই যদি
ভাসমান নৌকা পড়ুন
কবিতা | ৫ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৭০৪ বার দেখা | ১৪২ শব্দ
দূরন্ত পথিক
দূর দূরান্তে ছুটে যাও পথিক
কর্মে থাক মশগুল,
মনে চিন্তা; জীবন যুদ্ধে নাই কূল ! সাহস রাখ; ধৈর্য ধর,
শৈশব থেকে দুঃখ কর জয়। নির্ভয়ে পথ চলো; সদা সাহস রাখ,
লোভ লালসা ভুলে যাবে;
সৎ কর্মেই জয়ী হবে। জাতির হাল ধর তুমি কর্ণধার,
দূরন্ত পথ হোক স্বচ্ছতার।
-০-
২০-০৮-১৭
সকাল-৭১৫ মিনিট। পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪৬৮ বার দেখা | ৪২ শব্দ
ঘুম ভাঙ্গেনি
স্বাধীনতার বিয়াল্লিশ বছর পেরিয়ে গেল
ওহে বীর-বাঙ্গালি এখনো ঘুম ভাঙ্গেনি!
বিচার হলেও অপরাধ প্রবণতা কমেনি
দেশে নারী-শিশুর জুলুম নির্যাতন বৃদ্ধি,
কখন জাগবে আগামীর বীর সেনা ? বাংলার দামাল জেগে উঠ ন্যায়ের পথে
সমাজে যত অন্যায় দুর্নীতি নিমূল করো।
বাংলার স্থপতি পাইনি স্বাধিকারের সাধ
জাতি দমাতে ষড়যন্ত্র ছিল পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৩৬৯ বার দেখা | ১০৯ শব্দ