টিপু সুলতান-এর ব্লগ

টিপু সুলতান
১২ অক্টোবর ১৯৮৬
কেশবপুর, যশোর। বাংলাদেশ।

জীবন বৃত্তান্ত; লিকলিকে স্বচ্ছ ক্যানভাস
নদীর শরীরে উপচে পড়া
প্রেমালিকার ঢেউ, স্রোতস্বিনী কল্লোলঃ
প্রথম বার্তা,সবুজ আফ্রোদি উদ্দ্যানে
গানের বাঁশিতে সংগীত শোনায়-
লেবুগাছ ঘ্রাণ-আলাজ শরবত
আমার পূর্ণানন্দ, নক্ষত্র-পৃথিবীপৃষ্ঠ হৃদয়বীণা
রোদে পোড়া সখিনার রক্ত,শাদা দুধের মা;
কালোত্তীর্ণ সন্তান আমি তাঁর
শেষ অনন্দটুকুর ছায়ানট-
মানুষ হয়ে ওঠা প্রবাদ ও সংলাপ।

★ প্রথম কাব্যগ্রন্থঃ গৃহ কারাগার।২০১৭ ইং।
নৃ প্রকাশন,ঢাকা। প্রচ্ছদঃ কাব্য কারিম।
★ যৌথ কাব্যগ্রন্থ থেকে
জাতীয় ম্যাগাজিন,লিটল ম্যাগ, পোর্টাল,
জাতীয় পত্রিকাসহ বিভিন্ন ব্লগে টুকিটাক লেখালেখি।

প্রিয় বাক্যঃ আমি ভালো আছি, তুমি…

আমাদের সমুদ্রপাড়ে বাটারফ্লাই মানুষ
সমুদ্র উড়তে শিখলে অরণ্য ন্যাড়া হতে থাকে পাতাগুলোও বেড়াল বসা বালুর মতো
ওড়বার গল্প শেখে, রাজহাঁস-মাঠ চিরে ঘাস খায়
কেবল মহিষের ক্ষুর দাগ কাটে-ত্রিকোণ ঘর,
আমাদের সমুদ্রপাড়ে বাটারফ্লাই মানুষ
স্বপ্ন আঁকতে আঁকতে বন আঁকে, পথ আঁকে-
তারপর নগর, জড়ো হয় একে একে পেরেক গাঁথা
পৃথিবীর মুখমণ্ডল; চালাকি আকাশে তাকিয়ে-
ঝিঙেফুল রঙের অপরাহ্ন পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ৫৬ বার দেখা | ৫২ শব্দ
তারপর
সব রাত পুড়ে আলোরা অনুবাদ করে স্নিগ্ধ প্রতিমার নরম শরীর
লোমবাসে শেষ ভোরে ভিড় জমায়
টলমল লাবণ্য ছুঁয়ে আমি রোজ
নেমে আসি কয়েকটা সিঁড়িধাপ ভেঙে
অথবা সেই তুমি, তোমার নাভিতে
জড়াইয়ে যৌবন নিয়ে ভাগি- দিগন্তের মধ্যে; সব আয়োজন-রং আরও ভাগ করে পালক জেগে ওঠা
বনভাঙা হাওয়া পাখি, ডুব দেয়-
প্রণয় হয়ে উড়ে যায়-পাহাড়ের গায়ে,
নগরীর পড়ুন
কবিতা | ৬ টি মন্তব্য | ১৩৯ বার দেখা | ৫৩ শব্দ
দানাগাঁথা রাত
দানাগাঁথা রাত
আমাদের অসুখ এখন
নেবুফুল ঘ্রাণের মতো;
শুঁকে নিচ্ছি ভাঙন গেঁথে- নুন খসা শরীর বিছাইয়ে
নিমফুল আঁকানো রাত
বয়ে নিচ্ছে মন-শিল্প চোখ
দানাগাঁথা তসবি সুতোয়
সিঁথি কাটে ফুসফুস
গভীরে সাঁতরানো ছোট্ট ডুব এই শহরে সকল শিল্প
ঘ্রাণ মাখানো স্মৃতি-প্রেম
নিজের আঁকা ক্যানভাসে
ঘুমভাব ফাটিয়ে দেখি
করহাত উদরে ফুটছে-শব
দাড়ি পাকা শাদা চুল-
জীবন পক্ষ ছায়াসম হেরেম; পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | ১০৬ বার দেখা | ৪০ শব্দ ১টি ছবি
ভাঙা কোলাহলের পাশে
ভাঙা কোলাহলের পাশে
আমি চোখের ভেতর কবর দেখি। আমাদের কাঁধে নিয়ে হেঁটে যাচ্ছে
মৃত শরীর-বনের পাশে, মাটি খুঁড়ে- এই সব শরীর চলে যাওয়া পথ
চালকুমড়োর শাদা কুড়োর মতো
ডুবে যায়-রাখাল সন্ধ্যার দিকে-
খলবলে ব্রক্ষ্মাণ্ড, আরও ভাগ হয়
সুগন্ধি আতরে মখমলি স্লেটদাগ- আমাদের দেখা হয়-শুষ্কজলা ঠোঁটে
ভাঙা কোলাহলের পাশে-রেলস্টেশন,
ধু ধু মাঠ-পিঁপড়ের ঢিবি, আঁশশাদা
চারাগাছের পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | ১৪২ বার দেখা | ৪৮ শব্দ ১টি ছবি
মায়া
দিন শেষে, এমন প্রেম মনে রাখবার মতো
গোলাপি জল তোমার সিঁথিকাটা দাগে
নেবুফুল পাতার ঘ্রাণ ভেসে আসছে
আমি শুঁকে নিচ্ছি-নভোমণ্ডল, চুম্বন সব; পৃথিবীর তলানিতে-কবর,
এই ভেবে
সেখানেও ‘দু জন” ঘুমাবো- গতদিনে ঝরাপাতার মৃতশরীর খুঁটে খুঁটে
গিলে খেয়েছে পচন হাওয়াদের হা ভিটে
সাপবাঁকা ঢেউয়ের নিচে ডুবেছিল-গোধূলি
মাছকাঁটার মতো দাঁড়টান বৃক্ষ/মেরুদণ্ড-
আমি দেখেছি-মাঝে মাঝে ভাগ হতে ঠুনকো ডাকের পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ১৫৯ বার দেখা | ৫৪ শব্দ
শাদা কাফনের পাশাপাশি
শাদা কাফনের পাশাপাশি
মহার্ঘ্য চোখ-দেখো, পা দুটো টলছে- আরেকটু নিচের দিকে স্বাস্থ্যবান ঘাস
প্রতিদিনের হাওয়া-
স্লেটে দাগা অসহায় আয়ুর কপাল
একটা কচ্ছপের মতো মাথা উঁচু করে খুঁতকাড়া মেশিনঘরে মিশে যাচ্ছে অন্ধকারের চাঁদ, ডুবে যাচ্ছে-বৃক্ষ
-আনাচেকানাচে, রোদ-বৃষ্টির সঙে
ফোসকা ওঠা জীবিত রোজগার-
অভিমান মুখ ছাপাখানার মতো
ছাপিয়ে যায় নগর হতে শহর,বাড়ি
আজকাল মুখোমুখি লুকিয়ে দেখি শপিংমল পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | ৭৯ বার দেখা | ৫৬ শব্দ ১টি ছবি
আঙুলের ছায়াবাস
আঙুলের ছায়াবাস
আঙুলের ছায়াবাস-কেবল নাচে, দীর্ঘ কুয়াশার মহার্ঘ্য ধূলির পাশে-
থানকুনি পাতা-বিপন্ন স্মৃতির শরীর মুছে বহুল জন্মা লোক
হেঁটে যাচ্ছে-কোথায় যাচ্ছে যেনো? একজন-একজন যেনবা
মিলেমিশে, আঁধারঘরে হারাইয়ে/অর্গানিক হাওয়ার প্রার্থনারা
সাপরেখার মতো ঝোঁক নিয়ে উঠে যায়-আর যাচ্ছে
মৃত ঘুমের আগে, স্বরলিপির পাহাড় বাইয়া; আসমানের সম্মুখে- এই দেখো-যারা ইতিকথা লিখতে পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২৭৪ বার দেখা | ৮৯ শব্দ ১টি ছবি
হরিণমনা চোখে প্রত্যাশার কাজল
হরিণমনা চোখে প্রত্যাশার কাজল
সবকিছু হরিণমনা চোখে দাঁড়াইয়া আছে
যে যার মতো খোলস বদলানো বিলাপ চেপে- উজবুক উরু জরায়ু ফুঁড়ে দূরে উঁকি দিচ্ছে-
মন্থরতম পৃথিবী, প্রতিদিন; অথচ তোমাকে
লিখতে গিয়ে, এই শহরে রাত নন্দিনী হয়ে ওঠে
শ্রীনাথ নগর-আঙুল খসে মাখে প্রত্যাশার কাজল মায়া ভরা সারি সারি নাগরিক গাছ, পাখিরা-
উড়ে যাচ্ছে পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২০৯ বার দেখা | ৬৬ শব্দ ১টি ছবি
সংসার সংসার খেলা
পাখিরা উড়তে শিখলে আকাশ বড় হয়। বৃক্ষরা ডাল মেলায় পৃথিবীর দিকে-
হাওয়ারা যৌন্মিল সংসার-সংসার খেলে
দূর হতে অদূর, লালিত চৈতপুঁজির
প্রাক্তন ফসলের মাঠ; ফুরফুরে উত্তেজনা-
দা কাটাকাটি, মেঘ-রোদ হামাগুড়ি খায়
ক্ষেতের পেরেকে-দিগন্ত, টের পায়-সব
বিউগল সুর কিংবা অঙ্কুর বীজ-
মৃত্যু-পতন ঠেলে বেরোয় পরমায়ু চাষ
ফুল প্রসাধনের হাত-হাতুড়ে পেটানো মেরামত! পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২৩০ বার দেখা | ৪০ শব্দ ১টি ছবি
পৃথিবীর আলিঙ্গন
পৃথিবীর আলিঙ্গন
এইভাবে বিবর্তনের কথা বলো-শ গ্রাম, কা পাখি-গাছ বাইয়া
যেনবা সবকিছু ফুরিয়ে যাবার আগে
নিরন্ন ঘোর খাঁ খাঁ জীবের ভেতর, শেষ হতে দম নাও
হাওয়ার পিঠে ইনহেলার বসাইয়া, আরেকবার; তৈয়ার হোক কেবল পাতাদের সিনেমা, উদাসীন গান-গড়াইয়া যাক
শুকনো গলা উপেক্ষা ঝাঁক ঝাঁক প্রতিধ্বনি, পুঁটিমাছের মতো;
শহুরে যাদুঘর পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৪১ বার দেখা | ৫০ শব্দ ১টি ছবি
এই দিন শেষে একা/নাগরিক
এই দিন শেষে একা/নাগরিক
এই দিন শেষে মুদ্রার ঢাক বাজে, হাত তালুর নিচে টস খেলা ধ্বনি
ভাঁজখোলা দাগে-খণ্ড খণ্ড প্রস্থান, এখানে সব পাতারঘর,
অদূর জানালায় পাখি হয়ে বসি-মফস্বলের বাঁকে-বিভোর জড়ানো
সুন্দরী সেবিকা চাঁদ-সমস্তজুড়ে হাঁটে, পৃথিবীর ছায়া কাটে
বিচ্ছিন্ন নাগরিক শহর; নগর বলে চিনিয়াছি শরবত কুয়াশার কাকানি-
এইভাবে স্বজনের শরীরে পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৬৬ বার দেখা | ৭৮ শব্দ ১টি ছবি
স্নিগ্ধ শব্দগুলো
স্নিগ্ধ শব্দগুলো
পুরনো ঢাকা শহর খুঁজে দেখি
কোথাও নেই তুমি
কবিতার বইয়ে কেটে যায় রাত- হোগলাপাতার মতো দুলছে
জীবনভর্তি ঝুল আকাশ-
বহু ধুলোকণা ফেটে বেরিয়েছে গাছ সহজ নগরীর বনবাসে
আলগোছ পড়ে থাকা হাত
স্নিগ্ধ শব্দগুলোর প্লট- এই দেখাদেখি, অন্য রকমফের
শেষ ভোরের আগে-
সুনশান বিশুদ্ধ ভালবাসা
জোড় জোড় মিথ হয়ে পালায়
একটি শরীরের বাহার, যাদুঘর; পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১০৬ বার দেখা | ৪০ শব্দ ১টি ছবি
তোমার মৌসুমি পালক
তোমার মৌসুমি পালক
তোমাকে একদিন পস্তাইতে হবে
তৃষ্ণার্ত চোখে কাঁদবে
জীবনের গহিনেও ছায়া পাবে না
আমার মতো পাবে না, কেয়ারটেকার; মনের মতো এমন ব্যাধির শরীর
আর কোথাও তৈয়ার নেই,
ভিন্ন ভিন্ন ভাবে দেখো-সব জোড়াতালি
অদ্ভুত ফারাক; প্রমাণ পাইবে তোমার হাতের টিস্যু, দশ টাকা প্যাকেট
কখনো কখনো তোমাকেও মুছতে
ভুলে যাবে, কেবল জমবে ধূলোময়লা;
আমার পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৬৭ বার দেখা | ৭২ শব্দ ১টি ছবি
চাঁদভাঙা জ্যোৎস্নার নেবুঘ্রাণ
চাঁদভাঙা জ্যোৎস্নার নেবুঘ্রাণ
অনেক কেটেছি দাগ, থির হাওয়ার বুকে, বৃত্ত করে।
তোমার ব্যাকুলতায় মোটের ওপর পৃথিবী এঁকে-হেঁটে যাচ্ছে
কোনো এক কল্পিত রাজকুমার, মৌন ঋতুর ভেতর দিয়ে
পয়ত্রিশ মাইল, কেবল এই আয়োজন-ডুমুর ফুলের মতো;
তোমার কোমরে-সাপরেখা ব্যথার পাশে-শুয়ে থাকা
কালো বেড়ালি রাত মাঝেমধ্যে দেখি-হু হু কাতরায়
যেকোনো নঙোর করা পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৭৮ বার দেখা | ৫৫ শব্দ ১টি ছবি
সুতোকাটা ঘুড়ি
সুতোকাটা ঘুড়ি
আহ! সকলে কোথায় যাচ্ছি
কোথায় যাচ্ছে সব
এই ফুটফুটে আদিম গৌত্র- প্রার্থনার করজোড়
সেও এক যাযাবর-হাত খসে
ওড়ে-আঁধার শাসিত ঘুম
আসমানি চোখে গহিন ডুব
ডুমুর গাছের নিচে/নির্জন ঘর অতঃপর এই দেখতে হচ্ছে
হাওয়াদের হাঁটাচলা অর্ঘ্য
খুব করে দেখিয়েছে-খুইব
টেনে নিয়ে যাচ্ছে সবকিছু
বদলিয়ে-দাগ এঁকে, এক এক
করে-ল্যাম্পপোস্ট ঘ্রাণ
সুতোকাটা ঘুড়ির মতো
দূরে জন্ম নিচ্ছে শবপাখি! পড়ুন
সাহিত্য | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১১৩ বার দেখা | ৪০ শব্দ ১টি ছবি