জসীম উদ্দীন মুহম্মদ-এর ব্লগ
খবর
ইদানিং আপাদমস্তক বেদনারা থৈ থৈ করেযেভাবে
বরষার নবীন জলেরা থৈ থৈ করে ঠিক সেভাবে
আমি অপলক চোখ মেলে তাকিয়ে কেবল দেখি
গরু ওড়ে
গাধা ওড়ে
কিছু কিছু মানুষ তারাও ওড়ে
কেবল ভোরের পাখি ওড়ে না ঘুড়ি ওড়ে না! সাঁই সাঁই করে সাঁতার কাটে ফাইটার জেট
নিরীহ কিছু পোকা-মাকড়ের উপর মলের মতোন
বোমা ফেলে পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ৪২ বার দেখা | ৯৪ শব্দ
রাত্রির মতো দুর্গন্ধযুক্ত ন লৌকিক কিছু একটা
রাত্রিতে পেঁচার রাস্তা মাপার কিছু নিরীহ সুখ যেমন আছে;
তেমনি কিছু নিষ্পৃহ বেদনাও আছে
আগ্রাসী ধুলোবালিদের না দেখেই যেমন গিলে খাওয়া যায়
তেমনি কাকেদের মতোন চোখ বন্ধ করে পুকুরচুরিও করা যায়;
কেউ দেখে না, দেখতেও চায় না
যেমন মনে মনে আস্ত মেয়ের আপাদমস্তক গিলে
খেলেও কেউ দেখতে পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ৫০ বার দেখা | ১৩৪ শব্দ
পাতিলেবু
তারা কোনোদিনই পরাজিত হয়নি
আগাছা, পরগাছা থেকে মাচা বেয়ে তিরতির করে
ওঠে গেছে রস থেকে রসায়ন
এক ফুল থেকে অন্য ফুলে ফুলেফেঁপে হরদম
আয়োজন করে গেছে দেদার পরাগায়ন! আর আমরা সেই তিমিরেই আছিযে তিমিরে
আদ্যিকালে ছিলাম কেবল দিয়ে যাচ্ছি
প্রতিনিয়ত আবদ্ধ জলের মহড়া যারা কোনোদিন
পরাজিত হয়নি আমরাই দিই তাদেরও প্রহরা! তবুও আমাদের পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ৪০ বার দেখা | ৯৫ শব্দ
বাপজান
চলো এবার সভ্যতার পাটাতন উল্টে দিই
গুড়িয়ে দিই কামুক নগর থেকে শহর
বস্তাবন্দি করে সমুদ্রে ডুবিয়ে দিই এইসব প্রহর! চলো আবার জংলী হই আন্দামান থেকে
আমাজান, দু’উরুর সন্ধিতে রক্ত দেখে দেখে
আর কতো কাঁদবে সখিনার বাপজান? চলো ফিরে যাই দিগম্বর বেলা; অতঃপর
যতো খুশি খেলতে থাকো আদিম খেলা
ওহে কাবিলের উত্তরাধিকার!
যে জন্মছে পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ৫২ বার দেখা | ৭০ শব্দ
বেদনা নিও না নারী...
বেদনা নিও না নারী—একবুক শূন্যতা নিও
আবার কোনোদিন যদি ছলাৎছলাৎ জল আসে
আবার কোনোদিন যদি পাঁতিহাসের ডানা হাসে
আবার কোনোদিন যদি জলের গায়ে ভেসে ঊঠে
হাজারে হাজার বীভৎস লাশের জীবন্ত ছবি
সেদিন আমি আবারও কবি হবো-নপুংসুক কবি!! আবারও বলি—-
বেদনা নিও না নদী বুকভরা হাহাকার নিও
বৃক্ষের যেমন কোনো বেদনা থাকতে নেই
নারীর পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ২৬ বার দেখা | ১০৬ শব্দ
কিছু কিছু শব্দ সবার
প্রতিটি জংশনেই জং ধরেছেজবর-জবর
যদিও আজকাল আর কেউ রাখে না খবর
তবুও আমি চাই কিছু কিছু শব্দাবলী সবার হোক
সবার কাঁধে কাঁধে একাধিক উত্তরীয় থাকুক! এই যেমন জন্ম, মৃত্যু, ভালোবাসা
এই যেমন স্বপ্ন দেখার একমাত্র আশা এরা! দেখছ না ক্রমাগত নেমে আসছে লোনাজল
দু’চোখের সুড়ঙ্গ অথৈ অথৈ; তবুও
পিশাচের মতোন হৈ হুল্লোড় পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | ২৬ বার দেখা | ৭৭ শব্দ
ডাকাত
অনেকদিন ধরেই ঘাড়ধরা শব্দে কবিতা লিখি
গাছ থেকে বেলের বদলে তাল পড়লে যেমন
হাঁচি আর কাশি একসাথে বেরোতে চাইলে যেমন
আমার কবিতার বেখাপ্পা শব্দেরাও তেমন!! তবুও কবিতা লিখি লেজ আর গোবর মাখামাখি
আমি ঋণগ্রস্ত অকবিবয়ে বেড়াই শব্দের দায়,
এভাবেই বেড়ে চলছে অপরিশোধিত লেনদেন
যে কেউ ইচ্ছা হলেই স্বত্তাধিকার কিনে নিতে পারেন! তবুও পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৫১ বার দেখা | ৮৭ শব্দ
মন খারাপের নদী...
মন খারাপের নদীটার কোনো সীমান্ত প্রাচীর নেই
কোনো গ্রীষ্ম, বরষা, শরত, শীত কিংবা বসন্ত নেই
কেবলমাত্র কিছু মাংশ গলানো হাড়গোড় আছে! অথচ অনেক মৃতমানুষও হাজার বছর বেঁচে থাকে
অনেক খাবারের স্বাধীন স্বাদ জিহবায় লেগে থাকে
আজীবন, আর কিনা কিছু কিছু জীবন্ত মানুষ মৃত মানুষের মতোন!! অথচ ওরাও পিঁপড়ে মানুষের মতো পড়ুন
কবিতা | ৬ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪৯ বার দেখা | ৬৬ শব্দ
গিটার
মাঝেমধ্যে খুউব খুউব ইচ্ছে হয় সুতো ছিঁড়ি
ছিঁড়তে ছিঁড়তে ওলটপালট করে দিই কালের নদী
বাদ-প্রতিবাদ-বিসংবাদ ওরা ফিরে আসে যদি! তাহলে আমিও হতে পারি কার-হীন কালো অক্ষর
চোখের কাজলে মেখে নিতে পারি কাবিননামার
কাঁপা কাঁপা স্বাক্ষর! দেখছো নাযুগের পর
যুগ জিয়ে আছে কাবিলের কাব্যিক উত্তরাধিকার;
ছেঁড়াসুতোর গিঁটে গিঁটে কেমন হাসছে অটে গিটার! তবুও পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৪৫ বার দেখা | ৬০ শব্দ
মধ্যবর্তী
চলুক চলতে থাকুক জানু আর নতজানু নীতি
চলুকনোঙর করা পাল তোলা জাহাজ প্রীতি
বাজারে বাজতে থাকুককোকিলের কণ্ঠে শেখানো
যতোসব বাউলা গীতি! আমরা আম আদমি আছি পোশাক পড়া কবুতর
পোষা সাধ আর সাধ্যের গ্যাড়াকলে বাড়ন্ত ইতর! তবুও মন্দের ভালো অভিধান দিয়েছে শাপে বর
রাত্রিকালীন যে আপনার চেয়েও আপন
রাত্রি পোহালেই সে-ই পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৬৪ বার দেখা | ৬২ শব্দ
খোঁজা
পুরুষ যেমন দেখেছি, তেমনি কাপুরুষও দেখেছি
আলো আর আঁধারের অগ্রভাগ
সময়ে কেউ দায় নেয় না নেয় না গুটিবসন্তের দাগ! তবুও আমরা কাউকে নারী বলি
তবুও আমরা কাউকে পুরুষ বলি
হিমাংকের নিচে এ কেবল একটি মাত্র জন্মদাগ! অথচ আমি সারসংক্ষেপ বলতে কেবল নিজেকেই বুঝি
আমার চোখে বারংবার কেবল আমাকেই খুঁজি
এভাবেই চলছে অন্ধকারে পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১০১ বার দেখা | ৪৬ শব্দ
পাখির জোড়া ঠোঁট
খুটখাট করে করে ঠোকরে খায় পাখির ঠোঁট
কখনও খায় একলা আবার কখনও হয় জোট
তাবত পৃথিবীর সবাই জানে ওরা কী খায়
আর কী ফেলে যায়! ওরা খায় নতুন-পুরাতন সব দাগ, সুসময়ের
অগ্রভাগ; তবুও সূঁচালো কাল ওদের হিসাব
কষে সকাল-বিকাল, একদিন বিলুপ্ত হয়
পৈশাচিক ধ্বনি আজকে যার বৃহস্পতিবার
আগামীকালই হতে পারে তার শনি! তবুও পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৯৬ বার দেখা | ৬৭ শব্দ
আজকের কবিতাঃ ঘুমন্ত আশুরা
রোদ চাই রোদ চাই অনেকদিন বুকফাটা আগুনে রোদ দেখতে পাই না
দেখতে পাই না বোধ, সুবোধ, প্রবোধ
আমি চাই কিছু উড়নচণ্ডী রোদ উড়ুক জ্বলে-পুড়ে
খাক করে দিয়ে যাক দুরাচার এজিদের প্রতিরোধ! আর মর্সিয়া চাই না, আর চাই না দুঃখ-শোক
যেখানেই অবিচার সেখানেই হোক প্রতিরোধ, প্রতিশোধ
শেকল ভাঙার উঠুক রোদ উঠুক বুকফাটা পড়ুন
কবিতা | ৫ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৮১ বার দেখা | ৮৭ শব্দ
আনন্দলোক
কিছু কিছু আনন্দ লুকানোর জায়গা থাকে না
যেখানেই রাখি পাথর, পাহাড়, নদী, সমুদ্র, আকাশ
কেবল ভরা কলসির মতো উপচে উপচে পড়ে
উপচে পড়ে সে অনন্ত আনন্দলোকের বহিঃপ্রকাশ!! আসলে সবকিছু এতো ছোটো জলাধারের কথা
বলি অথবা মধ্যরাতের একাকি আকাশের কথাই
বলিঅসামান্য আনন্দলোকের কাছে তারা কতোই
না ছোটো! জাগরণে হোক অথবা স্বপ্নেই হোক অতুলনীয় পড়ুন
কবিতা | ৪ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৮০ বার দেখা | ৯৬ শব্দ
আইবুড়ো নক্ষত্র এবং সাঁওতালি মেঘ
আজ ঘুমের ঘোরে ঘোড়ায় সওয়ার হয়েছিলাম
এই আজব পৃথিবীর মতো সেখানেও আমি একা
তবে আশেপাশে ঢাকাই রাজপথের মতো বেশ কিছু ছায়াপথ ছিলো
ছিলো অপ্সরীর মতোন অজস্র নক্ষত্র বীথিকা! দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে বেশ কিছুক্ষণ ঘুমিয়েও ছিলাম
জানি না কেউ জেগে ছিলো কিনা অতল শব্দপুরি,
প্রহরের পর প্রহর উচ্ছন্নে গেলো তখনও আমি
একা; দূর পড়ুন
কবিতা | ৬ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৯১ বার দেখা | ১০০ শব্দ