ফকির ইলিয়াস-এর ব্লগ

কবিতা লিখি, থাকি নিউইয়র্কে।

তুষারপাতের আগে
তুষারপাতের আগে [] জমে যাচ্ছি, প্রগাঢ় শ্বাসকষ্টের ভেতর। পাতাহীন বৃক্ষের
প্রতিবেশে পাখিরা যেমন মুখ লুকিয়ে রাখে প্রেমিকার
বুকের বা’পাশে। কাঁপছি – পালকে বুনা ভারী কোট
গায়ে দিয়ে, একাকী সড়কে। আমাকে ফেলে রেখেই
চলে যাচ্ছে যাত্রী ভরা বাস। কাজল বরণ রঙ ধারণ করে মাথার উপর,
দাঁড়িয়ে আছে উইকেন্ডের আকাশ।
পৃথিবীর অন্যপ্রান্তে, বিজয়ের পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | ১৪ বার দেখা | ৭৭ শব্দ
হে পরিব্রাজক
হে পরিব্রাজক চারপাশে ভিড় করে আছে অগণিত ক্লাউন ও কিলার !
কোনদিকে যাবে, কোন পথ তোমার হবে হে পরিব্রাজক !
কোন সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে তুলবে হাত—
কেউ কি আছেন ! আমাকে একটু পার করে দেবেন পথ । চারপাশে জমে আছে বরফ ও বিচ্ছিন্নতাবাদ। হাতুড়ি হাতে
যে শিশু ইট ভাঙে, পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | ১৪ বার দেখা | ৯৮ শব্দ
পুনর্পাঠের তথ্যতালিকা
পুনর্পাঠের তথ্যতালিকা অসম্পূর্ণ থেকে যায় পাওনার ছায়াতালিকা। দেনার নক্ষত্রগুলো লাল চোখ দেখিয়ে
পাড়ি দেয় অন্য ভূপৃষ্ঠে। এখানে কোনও সম্প্রদান নেই। যে আলো ঘিরে রাখে
প্রাকৃত সুন্দর— সেই তপস্যাগৃহে মানুষেরাই শিখে নেয় জন্মদান পদ্ধতি, প্রেমহিস্যা। মূলতঃ এই পৃথিবীও একদিন পাঠগামী ছিল। যারা পড়তে পারতো না
বৃক্ষের শরীর, তাদেরকেই বলা পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ১৭ বার দেখা | ১০২ শব্দ
যখন কুড়ানোর অবশিষ্ট কিছুই থাকে না
যখন কুড়ানোর অবশিষ্ট কিছুই থাকে না
প্রণাম নিও হে পাতার প্রভাব। একটু সবুজ রেখে দিও
আমার জন্য। রাঙাতে চাই। রঙিন হতে চাই, নিজেও
এই জলক্যাম্পে ; এই উনুন উপত্যকায়। বিষ্ণুপ্রিয়ার মুখ
দেখে, চিনে নিতে চাই কুড়িয়ে রাখা শেষস্মৃতি। আবার জয়
হবে, আবার নুয়ে পড়া লতাগুল্মে সূর্যও দেখবে নিজের মুখ-
সেই ভাবনা পড়ুন
কবিতা | ৩ টি মন্তব্য | ১৮ বার দেখা | ৮৩ শব্দ ১টি ছবি
ডিসেম্বর ১৯৭১
ডিসেম্বর ১৯৭১ অনেকটা রোদকে চিনে নিয়েছি তখন। সেই ভোরবেলা
সেই তুমুল সর্ষে ক্ষেতে হলুদের ঢেউ দেখতে দেখতে খুব
সাবধানে এগিয়েছি বাঁকে। সুরমা আর বাসিয়া নদী দুটির
মিলন মোহনায়, একটি সূর্যকে স্বাগত জানাবো বলে। একটি শিখার কাছে বন্ধক রেখেছি আমার সব প্রেম, আর
প্রতিমার প্রথম চুম্বন। এই মাটিঘেরা উষ্ণ বাদাড়। কিছুটা
অবহেলায়, পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | ১৭ বার দেখা | ৮৬ শব্দ
পার্থক্যের কতকিছু
পার্থক্যের কতকিছু [] জগতে কতকিছুই প্রথম প্রকাশিত হয়, কতকিছু-
সান্নিধ্যের সাগর ছুঁতে না পেরে, মিশে যায় ঢেউয়ের
সাথে। কত শামুক-ঝিনুক, আত্মস্মৃতি খুঁজে
বদলায় নিবাস। নিমিষে ভালোবাসার ছায়াতলে
ডুব দেয় মানুষের প্রিয় পরাণ পাখিরা।
কত পার্থক্যের বেলা, নিয়ন্ত্রণ করে ঝড়ের ভাগ্য
এখন শ্রাবণ নয়, তবু তাণ্ডবের লালরেখা
দাগ রেখে যায় সময়ের বুকের উপর, পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | ১৩ বার দেখা | ৭৭ শব্দ
ছায়াগুলো সাজানো ছিল
ছায়াগুলো সাজানো ছিল [] নাটকের যবনিকা এলে বদলে যায় পর্দার রঙ। যারা
অভিনয় করেছিল,তারা পোশাক পাল্টে মিশে যায় জনস্রোতে।
হাততালি দিতে দিতে যারা উপভোগ করেছিল দৃশ্যাবলি-
তারাও ভুলে যায় বিগত সংলাপ। নাটকটি মূলত সাজানো ছিল,বলতে বলতে নাট্যকার
হাত দেন পরবর্তী পরিচ্ছেদ পরিকল্পনায়।বোকা মাটির ঘ্রাণ
বুকে নিয়ে পাখিরা সেরে নিতে চায় দেশান্তরের পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | ১৮ বার দেখা | ১০০ শব্দ
পশম ও পুষ্পের গান
পশম ও পুষ্পের গান আমি চিরকাল লিখে যেতে চাই পশম ও পুষ্পের গান
কালো কোন আকাশ পেলে
বদলে দেব সূর্যের আদল আর
বেদনার মুখাবয়বে ডুবে থাকা রোদের অসুখ-
সুখ দেব বলে কোন প্রতিজ্ঞা না করেই ঢেউগুলোকে দেবো
সমুদ্রের সোনালি সোহাগ দেবো আরও অনেক কিছুই। পাতার পতন দেখে যে দুপুর
কেঁদেছিল নীরবে, পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | ১০ বার দেখা | ৭৬ শব্দ
কার্তিকমহল
কার্তিকমহল [] খুব ভালো না থাকলেও চলে
যে আগুন পাঁজর পুড়ায়, যদি থাকি তার দখলে আর যদি নদী এসে বাধ্য হয়-সাজায় কোলাহল
তবু এই বনকন্যা প্রজাপতি জানি ছুঁবে কার্তিকমহল হেমমন্তের পথ থেকে ছায়া খুঁজে যে পথিক যায়
অজানায়, ছড়িয়ে দেয় একা একা নিজেকে অমোঘ মায়ায় তুমি তো আমাকেও রাখো সে পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২৪ বার দেখা | ৫৭ শব্দ
মনোনয়ন অথবা পরীক্ষা বিষয়ক
মনোনয়ন অথবা পরীক্ষা বিষয়ক [] কেউ আমাকে কখনও কোনো বিষয়ে মনোনয়ন দিয়েছে কী না-
তা আমার মনে পড়ে না। কেউ একজন একদিন বলেছিলো,
‘যে পরীক্ষায় তুমি কৃতিত্ব দেখিয়েছো-
সেটা আমেরিকার সিটিজেনশীপ পরীক্ষা’ কথাটা আমার মনে ধরেছিল খুব। সত্যিই তো !
তবে কি রবীন্দ্রনাথের পর আমিই অষ্টম বার ঢুকেছিলাম
প্রবেশিকা হলে! পাশ পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৯ বার দেখা | ৮৫ শব্দ
ক্যাটায়ারের ক্যাটগুলো ♣
ক্যাটায়ারের ক্যাটগুলো ♣ দারোয়ানরা তাহার ঘাড় ধরিয়া বাহির করিয়া
দিতে দিতে বলিল, তুমি তাড়াতাড়ি চলিয়া যাও।
‘আই এম দ্যা গ্রেট, আই এম দ্যা গ্রেট বলিতে বলিতে
সে বাহির হইলো। এবং বলিল, তাহারা আমার হাতে
ধরে নাই। পিটাইতে পারিত। তাহাও করে নাই। বরং
সম্মানের সাথেই বাহির করিয়া দিয়াছে। অথচ এই সিনারিও পড়ুন
অন্যান্য | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৮ বার দেখা | ১৯০ শব্দ
তিনটি কবিতা []
তিনটি কবিতা [] জলহাড়, হাড়ের ভ্রমণ স্থির দাঁড়িয়ে জলশব্দের ধ্যান দেখি
আমি সাধক নই,
নেই আমার সাধন-ভজন ও
তবু মায়াবি চান্দের ছায়া আমাকে বলে যায়
সাগরও পুড়ে, পুড়ে নগর
অক্ষত থাকে জলহাড়, হাড়ের ভ্রমণ। সেই হাড়ে জমে যে ক্ষরণ
প্রেমিক-প্রেমিকা তার হিম ছুঁয়ে ছুঁয়ে
সেরে নেয় প্রতীক্ষার সব জলবরণ। মেমোরি ও মনকানা জানার আগ্রহ সাগরে পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৬ বার দেখা | ১৫২ শব্দ
দুটি কবিতা
॥ হে অতীত, হে মেঘের ভবিষ্যত ॥ হে অতীত, হে মেঘের ভবিষ্যত
তুমি উড়ে যাবে বলো না—
ধীর ছায়ার মতো সাথে থাকো এবং
রাখো এই লোকালয়ে পদছাপ, কররেখা ,তর্জনী
তালুতে জমে থাকা জলের মতো
টলটলে বারুদ,বিস্ফোরণ
রাখো সবকিছু সাথে। আমি আলো জ্বালাবো বলে যেদিন
পথে নেমেছিলাম
সেদিন থেকেই তোমাকে বলছি—
আমার চোখ পাহারা দেয়া পড়ুন
কবিতা | ১টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ২০ বার দেখা | ৯৭ শব্দ
সুনীল, আপনি কাপুরুষ ছিলেন
সুনীল, আপনি কাপুরুষ ছিলেন ‘যদি নির্বাসন দাও’- বলে আপনি কার জন্য
বিষ পান করতে চেয়েছিলেন,
তা আমার জানা নেই। তবে এটুকু জানি-
আপনার বুকের গহীনে বাস করতো যে নির্বাসিত পাখি,
তার ডানা থেকে এক একটি পালক ঝরতো
আমার বুকে। কয়েকটি পরাগরেণু আমার জন্য
জমিয়ে রাখতো কিছু পাথর। আর আমি,
সেই পাথরচূর্ণ সমুদ্রে নিক্ষেপ পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৩৪ বার দেখা | ১০৩ শব্দ
অনাদি নদীর গান
অনাদি নদীর গান আমাকে উল্টোপথে যেতে দেখে যে সূর্য মুখ ফিরিয়ে
নিয়েছিল, সেও আজ খুব সদয় হয়ে এসেছে কাছে।
আর জানতে চেয়েছে, আমার নির্বাসিত জীবন কেমন
ছিল। কেমন ছিলাম আমি আসক্ত রাতের ছাউনীতে
হাত পেতে। কতোটা জলের জন্য আমি আকুল নদীর
কাছে খুঁজেছিলাম ছায়া। আমি কোনো উত্তর দিই নি। বলেছি, পড়ুন
কবিতা | ২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৭ বার দেখা | ৮৭ শব্দ