আলমগীর সরকার লিটন-এর ব্লগ

আলমগীর সরকার লিটন। লেখকের প্রথম কবিতা প্রকাশ হয় ‘দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় ‘ভিজে যাই এই বর্ষায়’ এরপর লেখকের অন্যান্য কবিতা ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হতে থাকে যেমন- ত্রৈমাসিক সাহিত্য পত্রিকা “মেঘফুল”, ত্রৈমাসিক পত্রিকা ’পতাকা’, মাসিক ম্যাগাজিন, সংকলন ‘জলছাপ মেঘ’। এছাড়া অনলাইন পত্রিকায় লিখে থাকেন। প্রথম কাব্যগ্রন্থ ’’মেঠোপথের ধূলিকণা’’ প্রকাশিত।

যেখানে থাক ভাল থাক কবি
যেখানে থাক ভাল থাক কবি
আজ শুধু আকাশ কাঁদছে-
বাতাস মৃদু শীতলতা বয়ছে!
একমুঠো কবির স্বাদ যেনো
সবুজ সমরায় শোকাহত- আর্তনাদ;
তারার পানে খোঁজেও পাব না আর
কবির কিছু কবিতার হাসি; মনিল করে রাখল সমস্ত কবিতার আত্মা
কবি তুমি কখনো প্রভাতের সূর্য হতে
পার! আমি কিছুটা তাপ নিবো-
আমার কবিতার পড়ুন
কবিতা | ৮ টি মন্তব্য | ৫৩ বার দেখা | ৭৩ শব্দ ১টি ছবি
কৃষ্ণচূড়া প্রাণ
কৃষ্ণচূড়া প্রাণ
হায় হেমন্ত, কখন গা গড়ে গেলো
ইট পাথর শহর থেকে- এতটুকু
বুঝতে পারলাম না! হেমন্ত তুমি
নবান্নের মৌ মৌ করা মধুর ঘ্রাণ;
নাকে এসে করে যাও ফান- ফান!
তবুও শিউলি ফুটে ঐ গাঁয়ে উঠান। মায়ের হাতে পিঠা পুলির কি স্বাদ;
উড়ে আসে আমার আকাশ ছুঁয়ে-
বাতাসে পূর্ণ পূর্ণিমার পড়ুন
কবিতা | ৬ টি মন্তব্য | ৪৩ বার দেখা | ৬০ শব্দ ১টি ছবি
দেহ বল
দেহ বল
বাহারে বা হারাতে বসেনি মৃত্যুর
ভয়ে মনোবল! মরতে হবে একদিন;
জানি না কেমন কষ্টদায়ক মরণ!
দৃষ্টির আড়ালে ভয়ানক কিছু দৃশ্য-
তবুও শক্ত রাখি দেহ বল; বাহারে বা
হারাতে বসেনি মৃত্যুর ভয়ে মনোবল! হায় রে হায় কিছু অসুখ ভার করেছে
ঘাড়ের পড়ুন
কবিতা | ৬ টি মন্তব্য | ৫৮ বার দেখা | ৬৩ শব্দ ১টি ছবি
খোল দরজাটা
খোল দরজাটা
পছন্দের মানুষটাকে পাগল বলা জায়েজ আছে,
কিন্তু অপছন্দের লোকটাকে পাগল বলা যায় না;
তবুও কয়েক বার পাগল বলছো- তার মানে
একটু একটু পছন্দের বাতাস ভেসে গেছে সাদা
মেঘের দলে কিন্তু নীল মেঘ এখন ঝর্ণা ধরায়-
অপছন্দের পড়ুন
কবিতা | ৭ টি মন্তব্য | ৫০ বার দেখা | ৯১ শব্দ ১টি ছবি
মেঘ শূন্য আকাশ
মেঘ শূন্য আকাশ
একটা আকাশ নীল ছুঁয়ে দেখি
মেঘ গুড় গুড় কৃষ্ণচূড়া বৃষ্টি!
অনুভবে অনুসরে বাতাস ঘ্রাণে-
হলো বুঝি একটা কিছুর সৃষ্টি। আগলে রাখা মনপুষা স্মৃতিগুলি
শ্রাবণ দিনের কতখানি কৃতি;
এতোটুকু ফাল্গুন বেলার আগুন-
জ্বলছে দাবানলে ক্ষতখানি দেখি; অথচ আমার মেঘ শূন্য আকাশ
গায়ে চড়ে মৃদু শিহরণে বাতাস-
এখনো শুধু বিষণ্নতায় মানছে না-
পড়ুন
কবিতা | ১২ টি মন্তব্য | ৯৯ বার দেখা | ৫০ শব্দ ১টি ছবি
সব অন্ধকার
সব অন্ধকার
হতবাক শুধু দৃষ্টির আড়ালে
এক কুয়া অশ্রু জল; শুকানোর
কোন উপায় নেই। হাহাকার
বুকের মধ্যে বজ্রপাত- কখন
হবে সুফলা শস্যের প্রভাত! একগঙ্গা রক্ত দেখতে হচ্ছে
বার- বার-কু-শাসনে হয়েছি
মহাসম্রাট- মুখের হাসিটুকু
বেদনা ছুঁই না- শুধু লালসার
ক্ষুধা মৃত্যু পর্যন্ত সীমাবদ্ধতা; ক্ষমতা তুমি আরো ঘুম পারো
যেখানে নীল মেঘ স্পর্শের
খেলা করবে পড়ুন
কবিতা | ৮ টি মন্তব্য | ৭২ বার দেখা | ৫৫ শব্দ ১টি ছবি
মৃত্যুদণ্ড চাই
মৃত্যুদণ্ড চাই
তুমি মহাপুরুষ নাকি ধর্ষণ পুরুষ
কোন পুরুষ রুপে বাঁচতে চাও;
যদি মহাপুরুষ হলে ফুলের মালা গলা
দুলবে আর যদি ধর্ষণ পুরুষ হও
তাহলে তোমার গলা ঝুলুক ফাঁসির দড়ি
কিংবা জনসম্মুখে মৃত্যুদণ্ডের দৃশ্য! বল কোনটা চাও তুমি মহাপুরুষ না
ধর্ষণপুরুষ- নিশ্চয় চাইবে একালের
মহাপুরুষ! ধর্ষণকারী পুরুষ নয়; তুমি বিবেক কে পড়ুন
কবিতা | ১০ টি মন্তব্য | ৫১ বার দেখা | ৬৯ শব্দ ১টি ছবি
দেশপ্রেম
দেশপ্রেম
এলোমলো ভাবনাতে একটু রাখ দেশত্বপ্রেম
না হলে সবমিছে যাবে তোমার সমস্ত গেম!
সকালে দেখো রঙের বৃষ্টি- বিকালে রঙধনু;
মাঠে ময়দানে দেখো সবুজ হাসি- অলিগলিতে
দেখো রক্তের হলি; কি ভাবছো রাতের স্বপ্ন? এবার ঘুম ভাঙ্গ চেয়ে দেখো- দেশমাতা তোমার
জন্য করছে গভীর আর্তনাদ- তুমি শুনতে চাও পড়ুন
কবিতা | ৮ টি মন্তব্য | ৮৩ বার দেখা | ৭২ শব্দ ১টি ছবি
শরীর ভাল নেই
শরীর ভাল নেই
কবির প্রাণীদেহ ভাল নেই
এসব দেখেই করেছে ম্যাজ ম্যাজ!
কবিতার গাঁয়ে পাড়ায় গেচ গেচ-
কেমন করে হবে তাই রঙ সাজুনির ব্যচ; ভয় করে না চিতল মাছ, যত আছে ছোট
মাছ, ধরে ধরে খাবে তাজ- কবি দেখে বসে
কবিতার একটুকু লাজ- অতঃপর কবির
শরীর ভাল নেই আজ। ১৫ পড়ুন
কবিতা | ৯ টি মন্তব্য | ৪৪ বার দেখা | ৪৪ শব্দ ১টি ছবি
রক্তক্ষরণ
রক্তক্ষরণ
ঘর বাহিরে আর কত বার রক্তক্ষরণ করব
মৃত্যুর দ্বার প্রান্তর- তবুও বুঝার উপায় নাই!
আকাশে বাতাসে মিশে যাচ্ছে রক্ত দাগ;
জ্বালাময়ী চোখ বুঝতেছে না- কখন বুঝবে
চারিধারে শূন্য আঁধার ঘনিয়ে আসছে- রক্তক্ষরণ করতে দিবে না আর খোলো বন্ধ দ্বার
ভেঙ্গে ফেলো যত আছে বাঁধার বাঁধ; দিলে পড়ুন
কবিতা | ৫ টি মন্তব্য | ৩২ বার দেখা | ৬২ শব্দ ১টি ছবি
নেই নতুনত্ব সৃষ্টির দিল
নেই নতুনত্ব সৃষ্টির দিল
তখন কষ্ট- এখনো কষ্ট, তোমার
নীরব থাকা-  দু’চোখের ভাষা বুঝার বড় দায় ছিল-
আমার ভাল লাগার প্রকাশ ভঙ্গী
তোমার কাছে ভীষণ ভাবে অপছন্দ ঘৃণার ছিল
একটু কাছে আসার মর্মখানি
এভাবে হলো বুঝি শুকনো খালে জল ভারা বিল। তোমার ভীরু লজ্জামুখ, আমাকে
জানিয়েছে শুধু এতোটুকু আনন্দ ঘন সুখ-
প্রণয় নিয়ে পড়ুন
কবিতা | ১০ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৮৯ বার দেখা | ৬৩ শব্দ ১টি ছবি
পঁচে যাবিহিনি দেহ মাটির গন্ধ
পঁচে যাবিহিনি দেহ মাটির গন্ধ
‘‘বগুড়া আঞ্চলিক ভাষায় লেখার চেষ্টা করেছি ’’ কয় জুনে দেখছুনু খুঁড়ে খুঁড়ে খাচ্ছুনু
হামার দেহ মাটি- কিছু নেরা ইউপুকার দল বল!
খাবার চিন্তা ভাবনা এখে বারে ভিন্ন রকম;
যেখানে লোহা ঢুকনে পারনু না, সেখানে বিষ ঢুকবে
ক্যাকা করে বারে; দেহ পঁচে পড়ুন
কবিতা | ৯ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ৬৮ বার দেখা | ১৭৫ শব্দ ১টি ছবি
হামাগিরে কানছেগেরি ভিছিল
হামাগিরে কানছেগেরি ভিছিল
”বগুড়ার আঞ্চলিক ভাষায় লেখার চেষ্টা করেছি” একদিন আব্বাক কনু হামাক আনা
কানছেগেরি দেখবার নিয়ে যাও তো;
হামী যমুনা নদীও দেখে আসমুহিনি!
আব্বা কল মেলাদূর- ওদে গাও পুড়ে
যাবিহিনি তোর বাবা ; পুড়ে পুড়ুক গে। আব্বা কল কিসেন হছে পাট নিরেচ্ছে
হামী পান্তা নিয়ে যামু, হামী তখন পড়ুন
কবিতা | ১২ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৮৩ বার দেখা | ১৪৫ শব্দ ১টি ছবি
দেকা হবি নে
দেকা হবি নে
সাবেজ পাথার হিমঠান্ডা বাতাস উত্তাপ ওদ এরি মধ্যে
সৈকেত, শাঙন যেটি সেটি ডেটিংক মারত;কি দিগির পারত
কি চিপেচাপত- হামী সালা খারা থেকে চেয়ে চেয়ে দেখতাম
আর ভাবতাম এভেবে ওর সাথে ডেটিংক মারতে পারতাম
কতই না মজা হত, তাই না! একদিন সালা সৈকেত
হামাক দিয়ে চিঠি পড়ুন
কবিতা | ৬ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১৩৪ বার দেখা | ১১৯ শব্দ ১টি ছবি
কষ্টকুটুম জল
কষ্টকুটুম জল
অন্তবাহিরে হাত ধুবার পানি স্বচ্ছ না
সুতরাং গামছা শুকনো না থাকলে-
মুখ পরিষ্কার করে যায় না; কাপড় শুকানো
দড়ি নাই বলে- বাড়ি উলঙ্গ করে উঠান রেখেছে!
অথচ ভাবতেই লোম দুর্বল হচ্ছে, কষ্টকুটুম জল ধারা কোন কথাই শুনছে না
হাতটা কেমন করে স্পর্শ করবে!
ভালবাসা পড়ুন
কবিতা | ৭ টি মন্তব্য | মন্তব্য বন্ধ রাখা আছে | ১০৪ বার দেখা | ৭৬ শব্দ ১টি ছবি